নায়ক ফেরদৌসকে টেনে মোদিকে ধমকালেন মমতা!

প্রজন্ম রিপোর্ট

নির্বাচন নিয়ে ভারত এখন উত্তপ্ত! বিশেষ করে পশ্চিমবঙ্গে তৃণমূলের প্রতিরোধের মুখে পড়েছে সরকার দলীয় গেরুয়া বিগ্রেড। অন্যদিকে বিজেপিও লণ্ডভণ্ড করে দিচ্ছে তৃণমূল শিবির। মাত্রই, আজ (২৭ মার্চ) থেকে শুরু হলো প্রথম দফার ভোট।

ঠিক এমন সময়েই তাদের রাজনীতির মাঠে ফিরে এলেন বাংলাদেশের চিত্রনায়ক ফেরদৌস। ঢাকার নায়ককে টেনে ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফর নিয়ে তুমুল কটাক্ষ করলেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কণ্ঠে ছিলো ধমকের সুরও!

ঠিক তখনই, আজ (২৭ মার্চ) ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী মোদি বাংলাদেশের গোপালগঞ্জের কাশিয়ানি ওড়াকান্দির ঠাকুরবাড়িতে মতুয়া সম্প্রদায়ের প্রতিনিধিদের উদ্দেশে ভাষণ দিচ্ছিলেন।

ভারতের পশ্চিম মেদিনীপুরের সভা থেকে বাংলাদেশে অবস্থানরত মোদিকে আক্রমণ করলেন মমতা। তার অভিযোগ, এই বিশেষ শ্রেণীর ভোট প্রার্থনা করতেই প্রধানমন্ত্রীর বাংলাদেশ সফর। আর এটা নির্বাচনী নিয়মের বরখেলাপ। বিষয়টি তুলে ধরতে বাংলাদেশের নায়ক ফেরদৌসের উদাহরণ টানলেন ‘খেলা হবে’-খ্যাত এই দিদি।

তার ভাষ্য, ‘আপনি (মোদি) যদি ভোট চলাকালীন বাংলাদেশে একটি বিশেষ শ্রেণির মানুষের জন্য ভোট চাইতে যান, তাহলে আপনার ভিসা-পাসপোর্ট কেন বাতিল হবে না? ফেরদৌস নামে এক বাংলাদেশি ফিল্মস্টার এসেছিল পশ্চিমবঙ্গে। ২০১৯ লোকসভায় আমাদের একটা র‌্যালিতে যোগ দিয়েছিলেন। বিজেপি এসে সরকারের সঙ্গে কথা বলে ওনার ভিসা বাতিল করে দিলো! আর প্রধানমন্ত্রী ভোট নোটিফিকেশন হওয়ার পরে বিদেশে গিয়ে ভোট নিয়ে কথা বললে কী হয়? আপনার জন্য সব ছাড়? আর অন্যদের জন্য নয়?’

আরও যোগ করেন, ‘আমরা নির্বাচন কমিশনের কাছে অভিযোগ করবো। কখনও বলছে বাংলাদেশ থেকে মমতা সব অনুপ্রবেশ করিয়েছে, আবার কখনও বাংলাদেশে গিয়ে মার্কেটিং করছে। কে ঠিক আর কে ভুল, তার জবাব চাই। নইলে যতদূর যাওয়ার আমরা যাবো।’

২০১৯ সালের এপ্রিলে পশ্চিমবঙ্গের একটি নির্বাচনী র‌্যালিতে অংশ নিয়েছিলেন ঢাকার নায়ক ফেরদৌস। আর এতেই ছিল বিজেপির তুমুল আপত্তি। এর পরপরই ফেরদৌসের ভারতীয় ভিসা বাতিল করে তাকে কালো তালিকাভুক্ত করা হয়। আজ অবধি পাননি ভারতে যাওয়ার অনুমতি। এমনকি, ‘বঙ্গবন্ধু’ বায়োপিকেও তিনি অভিনয় করতে পারেননি এই কালো তালিকার কারণে।

মন্তব্য