যমুনার ভাঙনে বিলীন তিন শতাধিক বসতভিটা

প্রজন্ম ডেস্ক

জামালপুরের দেওয়ানগঞ্জ উপজেলায় গত তিন মাসে তিন শতাধিক বসতভিটা যমুনা নদীতে বিলীন হয়েছে।

নদীভাঙনে গত এক সপ্তাহে দেওয়ানগঞ্জের খোলাবাড়ি বাজারে ৭০টি দোকান বিলীন হয়েছে। চরাঞ্চলের অর্ধশতাধিক বসতভিটাও হারিয়ে গেছে নদীগর্ভে। ভাঙনের হুমকিতে আছে নবনির্মিত বাহাদুরাবাদ নৌ থানা, প্রাথমিক বিদ‌্যালয় ও মাদ্রাসাসহ সরকারি-বেসরকারি স্থাপনা।

নদীভাঙন রোধে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়ার দাবি জানিয়েছেন এলাকাবাসী ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা। তারা জানান, ইতোমধ্যে এখানে একটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও একটি মাধ্যমিক বিদ্যালয় নদীতে বিলীন হয়েছে। এছাড়া, বাজারের ৯০ শতাংশ জায়গা নদীতে চলে গেছে।

জামালপুর দেওয়ানগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. সোলাইমান হোসেন বলেন, নদীভাঙনে ঝুঁকির মুখে আছে মাদ্রাসা, একটি নৌ থানা ও প্রাইমারি স্কুল। দ্রুত ব্যবস্থা না নিলে নদীগর্ভে বিলীন হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা আছে।

এ বিষয়ে জামালপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাইবো) নির্বাহী প্রকৌশলী আবু সাইদ বলেন, নদীভাঙন রোধে আমরা একটা টেকসই সমাধানের জন্য প্রকল্প হাতে নিয়েছি। বর্তমানে প্রকল্পের সম্ভাব্যতা যাচাই চলছে।

দেওয়ানগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সুলতানা রাজিয়া বলেন, আমরা পানি উন্নয়ন বোর্ডের সঙ্গে কথা বলেছি। জেলা প্রশাসক মহোদয়কে প্রতিবেদন দিয়েছি। জেলা সমন্বয় সভায় এটা আলোচনা হয়েছে। আমরা আশ্বস্ত হয়েছি যে, এই সমস্যা দ্রুত সমাধান করা হবে। 

মন্তব্য