দ্বিতীয় স্ত্রীকে তালাকের পর দুধে গোসল, ঢাকঢোল পিটিয়ে গ্রামে খিচুড়ি ভোজ

প্রজন্ম ডেস্ক

 গাজীপুরের শ্রীপুরে দ্বিতীয় স্ত্রীকে তালাক দিয়ে ফিরে আসায় স্বামীকে দুধ দিয়ে গোসল করিয়ে বরণ করেছে তার প্রথম স্ত্রী ও স্বজনরা। এ সময় প্রথম স্ত্রীর সঙ্গে এলাকাবাসীও ঢাকঢোল পিটিয়ে আনন্দ উল্লাসে মেতে ওঠে। রাতভর গানবাজনার সঙ্গে খিচুড়ি উৎসবও চলে।

গত রোববার (১৯ জানুয়ারি) রাতে গাজীপুর জেলার শ্রীপুরের মাওনা ইউনিয়নের ৭ নম্বর ওয়ার্ডে সিংগারদিঘি গ্রামে ব্যতিক্রমধর্মী এ অনুষ্ঠান হয়েছে।

স্থানীয়রা জানান, ওই গ্রামের মৃত কাজিমুদ্দিনের ছেলে আজিজুল হক (৩৭) ২০০১ সালে একই ইউনিয়নের সলিংমোড় এলাকার আব্দুল মজিদের মেয়ে তাজ নাহারকে প্রথম বিয়ে করেন। তাদের সংসারে দুই সন্তানের জন্ম হয়। সুখেই কাটছিল তাদের সংসারজীবন। কিন্তু ২০১৩ সালে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে মনোমালিন্যের সৃষ্টি হলে সম্পর্কের অবনতি ঘটে।

এরই মধ্যে একই গ্রামের নুরু মিয়ার মেয়ে শিউলি আক্তারের সাথে পরিচয় ও প্রেমের সম্পর্ক হয় আজিজুলের। এ সূত্র ধরে শিউলিকে দ্বিতীয় স্ত্রী হিসেবে বিয়ে করেন আজিজুল। কিন্তু দ্বিতীয় বিয়ে পর থেকেই আজিজুলের সংসারে অশান্তি শুরু হয়। একপর্যায়ে সংসারে শান্তি ফিরিয়ে আনতে আজিজুল নিজেই আইনিভাবে দ্বিতীয় স্ত্রী নিঃসন্তান শিউলিকে ডিভোর্স দেয়। এতে খুশি হয় প্রতিবেশীসহ স্বজনরা।

দ্বিতীয় স্ত্রীকে তালাক দিয়ে প্রথম স্ত্রীর কাছে ফিরে আসায় স্বজনরা রোববার রাতে আয়োজন করেন নানা আনন্দ অনুষ্ঠানের। অনুষ্ঠানের শুরুতেই শীতের রাতে স্বামী আজিজুলকে দুধ দিয়ে গোসল করিয়ে বরণ করে নেয় তার প্রথম স্ত্রী তাজ নাহার। রাতভর চলে ঢাকঢোল পিটিয়ে গানবাজনা ও আনন্দ বিনোদনের অনুষ্ঠান। এ সময় গ্রামবাসীদের খিচুড়ি ভোজ দিয়ে আপ্যায়নও করা হয়।

এ বিষয়ে আজিজুল হক বলেন, দ্বিতীয় বিয়ে করার পর থেকে সংসারে অশান্তি শুরু হয়। শান্তি ফেরাতে দ্বিতীয় স্ত্রীকে তালাক দিয়েছি। আমি ভালো হয়ে গেছি। জীবনে আর বিয়ে করব না। আল্লাহ আমাকে ক্ষমা করুক। পাশাপাশি জীবনে কেউ যেন দুই বিয়ে না করে তার অনুরোধ রইলো।

তিনি আরও বলেন, আগের ভুল থেকে পরিশুদ্ধ হয়ে নতুন করে জীবন শুরু করতে এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। গ্রামের মানুষ নিজেরাই আয়োজন করে ঢাকঢোল পিটিয়ে খিচুড়ি খেয়েছেন। পাশাপাশি প্রথম স্ত্রী রবিবার রাতেই দুধ দিয়ে গোসল করিয়ে আমাকে বরণ করেছেন।

মন্তব্য