নির্বাচনে আতঙ্কের পরিবেশ সৃষ্টি করেছে সরকার- মির্জা ফখরুল

প্রজন্ম ডেস্ক

 বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, নির্বাচনে আতঙ্কের পরিবেশ সৃষ্টি করেছে সরকার। এই সরকার একটি নিরপেক্ষ নির্বাচন করার পরিবেশ সৃষ্টি করতে পারেনি। নির্বাচন কমিশনও নিরপেক্ষতার কোনও প্রমাণ দেখাতে পারেনি। তাদের সেই যোগ্যতা নেই বলে আমরা মনে করি।

বৃহস্পতিবার (২৩ জানুয়ারি) সকালে হাইকোর্ট মাজার প্রাঙ্গণে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে বিএনপি মনোনীত মেয়র প্রার্থী ইঞ্জিনিয়ার ইশরাক হোসেনের প্রচারণায় অংশ নিয়ে তিনি এ কথা বলেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘একদিন আগে ঢাকা উত্তরে বিএনপি মনোনীত ধানের শীষের মেয়র প্রার্থীর তাবিথ আউয়ালের ওপর হামলা চালানো হয়েছে। গতকাল উত্তরের বিএনপি সমর্থিত কাউন্সিলর প্রার্থী এবং তার সমর্থকদের মারধর করা হয়েছে। দক্ষিণে বিএনপি সমর্থীত এক কাউন্সিলর প্রার্থীকে তুলে নিয়ে গিয়ে তিন দিন পর ফেলে রাখা হয় ঢাকার বাইরে।’

‘সুতরাং আমরা পরিষ্কারভাবে বলতে চাই, এই সরকার সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের পরিবেশ সৃষ্টি করতে পারেনি। নির্বাচন কমিশনও নিরপেক্ষতার প্রমাণ দিতে পারেনি। পদে পদে তাদের অযোগ্যতা, অদক্ষতা এবং সরকারের প্রতি আনুগত্যের বিষয়টি জনগণের কাছে পরিষ্কার হয়ে উঠছে’— বলেন মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

নির্বাচনে বিএনপির মূল এজেন্ড কী?— সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে বিএনপির মহাসচিব বলেন, ‘আমরা এই সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ঢাকা মহানগরের উন্নয়ন এবং বসবাসের অনুপযোগী ঢাকাকে বসবাসযোগ্য করা, সুন্দর করা আমাদের এজেন্ডা। সেই সঙ্গে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার এবং খালেদা জিয়ার মুক্তি— এগুলোই আমাদের ইস্যু।’

সরকারি দলকে সাহায্য করার জন্যই ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) নিয়ে আসা হয়েছে মন্তব্য করে তিনি বলেন, ‘ইভিএমের বিষয়টা পুরোপুরি নির্বাচন কমিশনের। এতে অন্য কারও কোনো এখতিয়ার নাই। নির্বাচন কমিশন তাদের অযোগ্যতা ঢাকার জন্য ইভিএম নিয়ে আসছে। সরকারি দলকে সাহায্য করার জন্যই কমিশন ইভিএম নিয়ে আসছে। আমরা বলছি, প্রয়োজনে নির্বাচন পিছিয়ে দিয়ে ব্যালটের মাধ্যমে নির্বাচন পরিচালনা করা হোক।’

ইশরাক হোসেনকে ধানের শীষে ভোট দেওয়ার আহ্বান জানিয়ে বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘আজকে ঢাকাবাসীর প্রতি আমার একটা আকুল আবেদন থাকবে তরুণ উদ্দীপ্ত নেতা ইশরাক হোসেনকে ধানের শীষে ভোট দিয়ে জয়যুক্ত করে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি ত্বরান্বিত করুন। ঢাকাবাসী তাদেরই ভোট দিয়ে মেয়র নির্বাচন করবেন যারা ঢাকার উন্নয়ন ও পরিবর্তনের জন্য কাজ করবেন। তাই আমরা মনে করি ইতোমধ্যেই ইশরাক হোসেন তার মেধা, সাহসী বক্তব্য এবং সাহসী পদক্ষেপে প্রমাণ করেছেন তিনিই একমাত্র নেতা যিনি আগামীতে ঢাকাকে নেতৃত্ব দিতে পারেন মেয়র হিসেবে।’

এসময় বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট জয়নাল আবেদিন, যুগ্ম-মহাসচিব সুপ্রিমকোর্ট আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন, খায়রুল কবির খোকন, হাবিব-উন নবী খান সোহেল, সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক মিলন, যুবদলের সাধারণ সম্পাদক সুলতান সালাউদ্দিন টুকু, ছাত্রদলের সভাপতি ফজলুর রহমান খোকন, সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন শ্যামলসহ দলীয় নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

মন্তব্য