বেশিরভাগ ক্লাবই আঁকড়ে থাকছে বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়াম

প্রজন্ম ডেস্ক

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার ফুটবল লিগের খেলাগুলো সমগ্র দেশে ছড়িয়ে দেয়ার উদ্যোগ নেয়া হলেও ক্লাবগুলোর রাজধানীকেন্দ্রিক মনোভাবের কারণে বারবার সে চেষ্টা ব্যহত হয়েছে। তাইতো প্রিমিয়ার লিগে নতুন নতুন ভেন্যু হলেও টিকছে না সেগুলো। ক্লাবগুলোর ঢাকার বাইরে খেলতে যাওয়ার অনীহায় প্রিমিয়ার লিগের নতুন নতুন ভেন্যু হলেও তা আবার হারিয়ে যাচ্ছে।

সর্বশেষ প্রিমিয়ার লিগ অনুষ্ঠিত হয়েছিল ৬ ভেন্যুতে। বাফুফে বলেছিল এবার ভেন্যু বাড়বে ঢাকার বাইরে। কারণ, বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামের বড় ধরনের সংস্কার কাজ হওয়ার কথা। তাছাড়া এবার মুজিববর্ষের কারণে দেশের প্রধান এ স্টেডিয়ামটি খেলাধুলার নানা কর্মসূচিতে ব্যস্ত থাকবে। চাপ কমাতেই প্রিমিয়ার লিগের সিংহভাগ খেলা ঢাকার বাইরে আয়োজনের উদ্যোগ নিয়েছিল বাফুফে। বড়জোড় ভেন্যুর সংখ্যা একটি বাড়তে পারে এবার।

মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাব লিমিটেডের কল্যাণে এবার নতুন ভেন্যু পাচ্ছে প্রিমিয়ার লিগ। সাদা-কালোরা তাদের হোমভেন্যু হিসেবে বেছে নিয়েছে কুমিল্লা স্টেডিয়ামকে। গত আসরের নোয়াখালী স্টেডিয়ামের দুই দল নোফেল ও বিজেএমসি প্রিমিয়ার লিগ থেকে অবনমিত হওয়ায় ভেন্যুটি চলে গেছে বাতিলের খাতায়। অন্য কোনো ক্লাবও এ ভেন্যুটিকে পছন্দ করেনি। তাই নতুন একটি ভেন্যু যোগ হলেও নোয়াখালী বাদ হওয়ায় সংখ্যাটা আর বাড়েনি।

এভাবে প্রিমিয়ার লিগে ভেন্যু যোগ হয় আবার বাতিল হয়। ২০০৭ সালে শুরু হওয়া প্রিমিয়ার লিগে বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামের পাশপাশি খেলা হয়েছে খুলনা জেলা স্টেডিয়াম, চট্টগ্রাম এমএ আজিজ স্টেডিয়াম, কক্সবাজার স্টেডিয়াম, নরসিংদী স্টেডিয়াম, নারায়নগঞ্জ স্টেডিয়াম, নোয়াখালী স্টেডিয়াম, ময়মনসিংহ স্টেডিয়াম, টাঙ্গাইল স্টেডিয়াম, সিলেট স্টেডিয়াম, গোপালগঞ্জ স্টেডিয়াম এবং নীলফামারী স্টেডিয়ামে।

এ ভেন্যুগুলোর মধ্যে বাতিলের খাতায় চলে গেছে খুলনা জেলা স্টেডিয়াম, চট্টগ্রাম এমএ আজিজ স্টেডিয়াম, কক্সবাজার স্টেডিয়াম, নরসিংদী স্টেডিয়াম, নারায়নগঞ্জ স্টেডিয়াম, টাঙ্গাইল ও নোয়াখালী স্টেডিয়াম।

গত প্রিমিয়ার লিগে ঢাকার বাইরে ভেন্যু ছিল সিংহভাগ ক্লাবের। ১৩ ক্লাবের মধ্যে ৭টির হোমভেন্যু ছিল বাইরে। এবার বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়াম ৬ ক্লাবের হোমভেন্যু, বাইরে খেলবে ৭টি ক্লাব।

গতবারের মতো এবারও নীলফামারী শেখ কামাল স্টেডিয়ামকে হোমভেন্যু করেছে প্রিমিয়ার লিগ চ্যাম্পিয়ন বসুন্ধরা কিংস, সিলেট জেলা স্টেডিয়াম নিয়েছে শেখ রাসেল ক্রীড়া চক্র, ময়মনসিংহ স্টেডিয়াম নিয়েছে সাইফ স্পোর্টিং ক্লাব ও আরামবাগ ক্রীড়া সংঘ, গোপালগঞ্জ শেখ ফজলুল হক মনি স্টেডিয়াম নিয়েছে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ক্রীড়া চক্র।

নতুন ভেন্যু কুমিল্লা স্টেডিয়াম মোহামেডানের। আর বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়াম হোমভেন্যু আবাহনী, শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাব, ব্রাদার্স ইউনিয়ন, রহমতগঞ্জ, উত্তর বারিধারা ও পুলিশ ফুটবল ক্লাবের। দুই আসর পর আবার নিজ শহরের এমএ আজিজ স্টেডিয়াম হোমভেন্যু হিসেবে নিচ্ছে চট্টগ্রাম আবাহনী।

চট্টগ্রাম এমএ আজিজ স্টেডিয়াম শুরুতে হোমভেন্যু ছিল স্থানীয় দুই ক্লাব চট্টগ্রাম আবাহনী ও চট্টগ্রাম মোহামেডানের। মোহামেডান প্রিমিয়ার লিগ থেকে ছিটকে পড়লেও টিকে আছে আবাহনী; কিন্তু ক্লাবটি তাদের নিজ শহরের স্টেডিয়ামকে হোমভেন্যু না করে গতবারের মতো এবারও বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামকে নিতে চেয়েছিল।

শেষ মুহুর্তে তারা নিজ শহরে খেলার সিদ্ধান্ত জানিয়েছে বাফুফেকে। এক সময় এমএ আজিজ স্টেডিয়ামকে ধরা হতো প্রিমিয়ার লিগের দ্বিতীয় প্রধান ভেন্যু হিসেবে। সেই স্টেডিয়ামটিও ভেন্যুর তালিকা থেকে প্রায় হারিয়ে যেতে বসেছিল।

এবার আরো একটি নতুন ভেন্যু হওয়ার কথা ছিল মানিকগঞ্জে। এখানে হোমভেন্যু করার কথা শোনা গিয়েছিল রহমতগঞ্জের। ক্লাবটির নামে স্টেডিয়ামটি বরাদ্দও দিয়েছিল জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ; কিন্তু শেষ মুহুর্তে পিছুটান দিয়ে রহমতগঞ্জ ঢাকাতেই থেকে যাচ্ছে।

ঘরোয়া ফুটবলের সবচেয়ে মর্যাদার আসর বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের খেলা মাঠে গড়ানোর কথা ছিল ৩০ জানুয়ারি; কিন্তু এক সপ্তাহ থেকে ১০ দিন লিগ পিছিয়ে যাচ্ছে। যদিও বাফুফে অফিসিয়ালি পিছিয়ে যাওয়ার কথা বলছে না। তবে সাধারণ সম্পাদক আবু নাইম সোহাগ আভাস দিলেন, ক্লাবগুলো চাইলে কয়েকদিন লিগ পেছাতেও পারে।

ইতিমধ্যে প্রিমিয়ার লিগ চ্যাম্পিয়ন বসুন্ধরা কিংস লিগ ৮ থেকে ১০ দিন পিছিয়ে দেয়ার অনুরোধ করেছে বাফুফেকে। ‘বসুন্ধরা কিংসের সভাপতি ইমরুল হাসান আজই (রোববার) আমাকে বলেছেন লিগ ৮ থেকে ১০ দিন পিছিয়ে দেয়া যায় কিনা। আমরা খসড়া ফিকশ্চার করে ক্লাবগুলোকে পাঠিয়েছি মতামতের জন্য। সোমবারের মধ্যে ক্লাবগুলো মতামত জানাবে। দেখি কি ফিডব্যাক আসে। তারপরই বলা যাবে লিগ ৩০ জানুয়ারি শুরু হবে নাকি কয়েকদিন পেছাবে’- বলছিলেন বাফুফের সাধারণ সম্পাদক।

চট্টগ্রাম আবাহনীর হোমভেন্যু এমএ আজিজ স্টেডিয়াম নাকি বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়াম তা নিয়ে বাফুফে দিয়েছে দুই ধরনের বক্তব্য। সংশ্লিষ্ট বিভাগ বলছে এমএ আজিজ স্টেডিয়ামে এবারও খেলা হবে না। আবার সাধারণ সম্পাদক নিশ্চয়তা দিয়েছেন এমএ আজিজকে ধরেই ফিকশ্চার তৈরি করা হয়েছে। তবে মোহামেডান-আবাহনীসহ কয়েকটি ক্লাবে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে বাফুফে তাদের খসড়া ফিকশ্চার পাঠায়নি।

১ ফেব্রুয়ারি ঢাকার দুটি সিটি করপোরেশনের নির্বাচন। দুই দিন বন্ধ থাকবে যানবাহন। ক্লাবের অনেক কর্মকর্তাই ব্যস্ত নির্বাচন নিয়ে। তাই ৩০ জানুয়ারি লিগ শুরু হওয়ার সম্ভাবনা নেই বললেই চলে। বাকি শুধু বাফুফের আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেয়া।

এবারের প্রিমিয়ার লিগের ১৩ ক্লাব হচ্ছে- বসুন্ধরা কিংস, আবাহনী লিমিটেড, শেখ রাসেল ক্রীড়া চক্র, সাইফ স্পোর্টিং ক্লাব, শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাব, মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাব লিমিটেড, আরামবাগ ক্রীড়া সংঘ, ব্রাদার্স ইউনিয়ন, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ক্রীড়া চক্র, চট্টগ্রাম আবাহনী, রহমতগঞ্জ এমএফএস, পুলিশ ফুটবল ক্লাব ও উত্তর বারিধারা।

মন্তব্য