উত্তরপ্রদেশে ‘যৌনকর্মী’ অপবাদ দিয়ে হোটেলে তরুণীকে দুই পুলিশের ধর্ষণ!

প্রজন্ম ডেস্ক

 ‘যৌনকর্মী’ অপবাদ দিয়ে এক তরুণীকে গণধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে দুই পুলিশ সদস্যর বিরুদ্ধে। এ ঘটনার পর ভুক্তভোগী তরুণী হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন। তার অবস্থা গুরুতর বলে জানিয়েছে চিকিৎসক।

সম্প্রতি ভারতের উত্তরপ্রদেশে গোরক্ষপুরের একটি আবাসিক হোটেলে এ ঘটনাটি ঘটেছে। গত শুক্রবার থানায় গিয়ে গোরক্ষপুর থানায় দুই পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ দায়ের করেন তিনি। তবে এই ঘটনায় এখনো কাউকেই গ্রেপ্তার করা হয়নি।

ভারতীয় গণমাধ্যমের প্রতিবেদনে বলা হয়, দিনকয়েক আগে বেশ কয়েকজন পরিচিতের সঙ্গে একটি হোটেলে যান উত্তরপ্রদেশের গোরক্ষপুরের বছর কুড়ির এক তরুণী। অভিযোগ, ওই হোটেলে আচমকাই তল্লাশি চালায় পুলিশ। সেই সময় তিনি হোটেলে একাই ছিলেন। পুলিশ তরুণীকে জানতে চায়, এই হোটেলে কী করতে এসেছেন?

তবে তরুণীর অভিযোগ, তাঁর কথা শুনতে চায়নি পুলিশ। তাঁকে ‘যৌনকর্মী’ বলে আক্রমণ করে ঊর্দিধারীরা। বেধড়ক মারধর করতে করতে হোটেলের ঘরের দরজা বন্ধ করে দেয়। এখানেই শেষ নয়। ওই হোটেলের ঘরে দু’জন পুলিশকর্মী তাঁকে গণধর্ষণ করে। তারপর অটোয় চড়ে ওই তরুণীকে বাড়ি চলে যেতে বলে তারা।

বাড়ি ফিরে আসার পর তরুণীকে দেখে সন্দেহ হয় তাঁর পরিজনদের। কী হয়েছে জানতে চাইলে অঝোরে কেঁদে ফেলেন নির্যাতিতা। ধীরে ধীরে ধর্ষণের কথা বাড়িতে জানান। গত শুক্রবার থানায় যান তরুণীর। গোরক্ষপুর থানায় পুলিশকর্মীদের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ দায়ের করেন।

এদিকে মানসিক এবং শারীরিক দিক থেকে বিধ্বস্ত নির্যাতিতা। তাঁকে স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, গণধর্ষণের জেরে তাঁর গোপনাঙ্গে ক্ষত তৈরি হয়েছে। মানসিকভাবেও যথেষ্ট ভেঙে পড়েছেন। তরুণীর শারীরিক অবস্থা এখনও স্থিতিশীল বলতে নারাজ চিকিৎসকরা।

এদিকে, দু’দিন কেটে গেলেও অভিযুক্তদের গ্রেপ্তার করা যায়নি। তাই পুলিশের বিরুদ্ধে গাফিলতির অভিযোগে সরব রাজনৈতিক নেতা-কর্মীরা। অভিযুক্ত দুই পুলিশকর্মীকে বহিষ্কারের দাবিতে ইতিমধ্যেই কংগ্রেস, সমাজবাদী পার্টি, বিএসপি এবং পূর্বাচল সেনার সদস্যরা জেলাশাসকের কাছে স্মারকলিপি জমা দিয়েছে। যত তাড়াতাড়ি সম্ভব অভিযুক্তদের গ্রেপ্তার করা হবে বলেই আশ্বাস জেলাশাসকের।

মন্তব্য