স্বামীর দেয়া আগুনে প্রাণ গেল অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীর

প্রজন্ম ডেস্ক

ঝিনাইদহ শহরের নতুন হাটখোলা এলাকায় পারিবারিক বিরোধের জেরে স্বামীর দেয়া আগুনে দগ্ধ তিন মাসের অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূ পিংকি (২০) চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন। শনিবার (২২ ফেব্রুয়ারি) রাত সাড়ে ৮ টার দিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে তার মৃত্যু হয়।

নিহত পিংকি একই এলাকার মুন্না বিহারীর মেয়ে। এ ঘটনায় মামলার পর নিহতের স্বামী সৌরভকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

ঝিনাইদহ সদর থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এমদাদুল হক জানান, শহরের আদর্শপাড়া এলাকার সাত্তার মন্ডলের ছেলে সৌরভের সঙ্গে একই এলাকার মুন্না বিহারীর মেয়ে পিংকির দুই মাস আগে বিয়ে হয়। এর আগে প্রেমের সম্পর্কের জেরে অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়েন পিংকি। তখন সৌরভ তাকে বিয়ে করতে রাজি না হলে থানায় মামলা করার পর পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে। পরে বিয়ের শর্তে সৌরভ মুক্তি পান। এরপর বিয়ের পর থেকেই তাদের মধ্যে বিরোধ চলছিল। একপর্যায়ে গত ১৬ ফেব্রুয়ারি স্ত্রী পিংকির গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেন সৌরভ। তখন পিংকিকে গুরুতর অবস্থায় ঝিনাইদহ সদর হাসপাতাল নেয়া হয়। সেখান থেকে ওইদিন রাতেই তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গত রাতে মারা যান পিংকি।

ওসি আরও জানান, স্ত্রীর গায়ে আগুন ধরিয়ে দিয়ে নিজেও কিছুটা দগ্ধ হয়েছিল সৌরভ। শুনেছি নিহত পিংকি অন্তঃসত্ত্বা ছিলেন। তবে সঠিক তথ্য ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন পাওয়ার পর জানা যাবে। এ ঘটনায় সৌরভকে গ্রেফতার করে আদালতে পাঠানো হয়েছে।

মন্তব্য