স্বাস্থ্য সনদ না থাকলে কুয়েতগামী যাত্রী নেবে না বিমান

প্রজন্ম ডেস্ক

কুয়েতে কর্মরত বাংলাদেশি শ্রমিকদের যারা বর্তমানে দেশে অবস্থান করছেন, তাদের স্বাস্থ্য সনদ না থাকলে বিমানবন্দর থেকেই ফেরত পাঠানো হবে বলে জানিয়েছে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স।

বৃহস্পতিবার (৫ মার্চ) সন্ধ্যায় বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের উপ-মহাব্যবস্থাপক (জনসংযোগ) তাহেরা খন্দকার এ-সংক্রান্ত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানান।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, কুয়েত গমনকারী সম্মানিত যাত্রীদের সদয় অবগতির জন্য জানানো যাচ্ছে যে, কুয়েত সরকার আগামী ৮ মার্চ থেকে বাংলাদেশ থেকে কুয়েতে প্রবেশকারীদের ক্ষেত্রে কিছু শর্ত আরোপ করেছে। শর্তানুযায়ী কুয়েতে প্রবেশকারীদের অবশ্যই বাংলাদেশের কুয়েত দূতাবাস কর্তৃক অনুমোদিত মেডিকেল সেন্টার থেকে ‘করোনাভাইরাস (COVID-19)-এ আক্রান্ত নন’-মর্মে প্রত্যয়নপত্র গ্রহণ করতে হবে। করোনাভাইরাস পরীক্ষা সনদ ব্যতীত কেউ কুয়েতে গমনের চেষ্টা করলে তাকে বিমানবন্দর থেকেই ফেরত পাঠানো হবে।

এতে আরও বলা হয়, বর্ণিত অবস্থায় বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের ফ্লাইটে কুয়েতগামী সম্মানিত যাত্রীদেরকে কুয়েত দূতাবাস কর্তৃক নির্ধারিত মেডিকেল সেন্টার থেকে ‘করোনাভাইরাসে আক্রান্ত নন’ মর্মে ইস্যুকৃত প্রত্যয়নপত্র বিমান চেক-ইন কাউন্টারে ‘বোডিং কার্ড ইস্যুকালে’ প্রদর্শন করার জন্য অনুরোধ করা হলো। অন্যথায় সম্মানিত যাত্রীদেরকে পরিবহন সম্ভব হবে না।

প্রাণঘাতী নভেল করোনাভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে বাংলাদেশসহ ১০ দেশের নাগরিকদের কুয়েত প্রবেশের ক্ষেত্রে কড়াকড়ি আরোপ করেছে দেশটির সরকার। এই ১০ দেশের নাগরিকরা কুয়েত দূতাবাসের দেয়া সনদ দেখাতে পারলে কেবল তাদের সে দেশে প্রবেশের অনুমতি দেয়া হবে। সেই সনদে লেখা থাকবে ‘ওই যাত্রী করোনাভাইরাস থেকে মুক্ত’।

মঙ্গলবার (৩ মার্চ) কুয়েতের বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ এক বিবৃতিতে এ তথ্য জানিয়েছে। ৮ মার্চ থেকে এ সিদ্ধান্ত কার্যকর হবে বলে এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে সংযুক্ত আরব আমিরাতের প্রভাবশালী দৈনিক গালফ নিউজ।
বুধবার (৪ মার্চ) কুয়েতের বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ এক টুইট বার্তায় জানিয়েছে, এ স্বাস্থ্য সনদ অবশ্যই কুয়েত দূতাবাস থেকে অনুমোদিত হতে হবে। উল্লেখিত দেশের মধ্যে যেসব দেশে কুয়েতের দূতাবাস নেই, সেসব দেশের স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠান থেকে প্রত্যায়িত সনদ থাকতে হবে। অন্যথায় নাগরিককে ফেরত পাঠানো হবে।

কুয়েতের বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ আরও জানায়, নির্দেশ অমান্য করা কোনো নাগরিককে ফেরত পাঠাতে অর্থ গুনবে না কুয়েত সরকার। নিজ খরচে তাকে ফিরে যেতে হবে। পাশাপাশি নির্দেশ অমান্য করার কারণে বহনকারী বিমান সংস্থাকে জরিমানা করা হবে।

মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোর মধ্যে ইরানের পর কুয়েতেই সবচেয়ে বেশি মানুষ নভেল করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে। মঙ্গলবার পর্যন্ত দেশটিতে আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৫৬ জনে।

বাংলাদেশের স্বাস্থ্য অধিদফতর জানিয়েছে, রাজধানীর মহাখালীতে অবস্থিত ইনস্টিটিউট অব পাবলিক হেলথের (আইপিএইচ) ল্যাবরেটরিতে কুয়েতপ্রবাসী বাংলাদেশি নাগরিকদের স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হবে। শনিবার (৭ মার্চ) থেকে স্বাস্থ্য পরীক্ষা শুরু হবে।

বৃহস্পতিবার (৫ মার্চ) বিকেলে স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এক জরুরি সভায় এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

মন্তব্য