কর্মীদের সঙ্গে অমানবিক আচরণ ল্যাবএইডের!

প্রজন্ম ডেস্ক

করোনাভাইরাস সংক্রমণের ফলে রোগী কমে গেছে, এমন অজুহাতে রাজধানীর ধানমন্ডির বেসরকারি ল্যাবএইড হাসপাতালের চিকিৎসক-নার্স ও কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মার্চ মাসের বেতন অর্ধেক দিয়েছে কর্তৃপক্ষ। কেবল তাই নয়, চলতি এপ্রিল মাসে অনেককে বাধ্যতামূলক ছুটিতে পাঠানো শুরু হয়েছে। এমন পরিস্থিতিতে হাসপাতালে কর্মরত কয়েকশ কর্মকর্তা-কর্মচারীর মধ্যে তীব্র ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে একাধিক চিকিৎসক-নার্স ও অন্যান্য কর্মকর্তা-কর্মচারী জাগো নিউজকে জানান,

করোনাভাইরাস কারণে সৃষ্ট পরিস্থিতিতে বাজারের যে অবস্থা, এই অবস্থায় গত মাসের অর্ধেক বেতন পেয়ে তারা বিস্মিত হয়েছেন।

তারা বলেন, স্বাভাবিক সময়ে হাসপাতালের ইনডোর ও আউটডোরে বিপুল সংখ্যক রোগী থাকে। সব খরচ মিটিয়ে হাসপাতালের প্রতি মাসে লাখ লাখ টাকা লাভ হয়। বেশি লাভ হলে তখন তো কর্তৃপক্ষ আমাদের বেশি বেতন দেন না। এ ব্যাপারে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের হস্তক্ষেপ করা উচিত।

এ ব্যাপারে জানতে ল্যাবএইড গ্রুপের চেয়ারম্যান ডা. শামীম আহমেদের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি দাবি করেন, গত মাসের অর্ধেক বেতন দেয়ার অভিযোগ সত্য নয়। তবে হাসপাতালে রোগীর সংখ্যা কমে যাওয়ায় তারা এ মাসে চিকিৎসকদের সঙ্গে কথা বলে যারা ডিউটি করবেন শুধু তাদের বেতন পরিশোধ করবেন বলে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

ডা. শামীম আহমেদ জানান, প্রতি মাসে হাসপাতালের খরচ সব মিলিয়ে ৬০-৭০ লাখ টাকা। করোনা পরিস্থিতির কারণে হাসপাতালে রোগী শূন্যের কোটায় নেমে আসায় তাদের প্রতিদিন বিশাল অঙ্কের লোকসান গুনতে হচ্ছে।

মন্তব্য