শ্রমিকদের মার্চ মাসের বেতন পরিশোধের আহ্বান

প্রজন্ম ডেস্ক

করোনাভাইরাসের কারণে সৃষ্ট পরিস্থিতিতে তৈরি পোশাক কারখানার যেসব মালিক এখনো শ্রমিক-কর্মচারীদের মার্চ মাসের বেতন পরিশোধ করেননি তাদেরকে বেতন পরিশোধ করতে বলেছে দুই শীর্ষ সংগঠন।

পোশাক মালিকদের তৈরি পোশাক প্রস্তুত ও রফতানিকারক সমিতি (বিজিএমইএ) ও বাংলাদেশ নিটওয়্যার ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যান্ড এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের (বিকেএমইএ) পক্ষ থেকে রোববার (১২ এপ্রিল) এ আহ্বান জানানো হয়েছে।

বিকেএমইএর সভাপতি এ কে এম সেলিম ওসমান এবং বিজিএমইর সভাপতি ড. রুবানা হক যৌথ বিবৃতিতে বলেছেন, মহামারি করোনাভাইরাসের কারণে বিশ্ব এক কঠিন পরিস্থিতি মোকাবিলায় সংগ্রাম করছে।  আমাদের শ্রমিক-কর্মচারী ভাইবোনেরাও তাদের বেতন-ভাতা নিয়ে এক অনিশ্চয়তার মধ্যে রয়েছে।  এ পরিস্থিতিতে ব্যাংক কর্মকর্তাদেরকে অনুরোধ করা হচ্ছে, এ সংকটকালে আপনারা (পোশাক মালিক) শ্রমিকের বেতন দেওয়ার ক্ষেত্রে সহজ শর্তে সহযোগিতা করুন। অনেক স্থানে লকডাউন থাকলেও শ্রমিকদের বেতনের টাকা দেওয়ার জন্য ২-৩ দিন কয়েক ঘণ্টা বেশি সময় খোলা রেখে বেতনের টাকা দেওয়ার ব্যবস্থা করুন।

পোশাক কারখানার মালিকদের উদ্দেশে তারা বলেন, যারা এখনো মার্চ মাসের বেতন পরিশোধ করেননি, যেকোনো পরিস্থিতিতে পরিশোধ করার ব্যবস্থা করুন। একসঙ্গে সমবেত না করে ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র গ্রুপে ভাগ করে এবং সময় ভাগ করে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে বেতন পরিশোধ করুন। যারা এখনো শ্রমিকদের ব্যাংক বা মোবাইল ফিনান্সিয়াল সার্ভিস (এমএফএস) অ্যাকাউন্ট করতে পারেননি অতি দ্রুত তা সম্পন্ন করুন।

এমএফএস প্রতিষ্ঠান ‘নগদ’, ‘রকেট’ ও ‘বিকাশ’ শ্রমিকের অ্যাকাউন্ট খুলতে সব ধরনের সহযোগিতায়। প্রয়োজনে বিজিএমইএ ও বিকেএমইএর সহযোগিতা নিন।

রফতানিমুখী পোশাক সংগঠন দুটি বলছে, ‘শ্রমিক বাঁচলে শিল্প বাঁচবে, শিল্প থাকলে শ্রমিক বাঁচবে। জানি আপনারা শ্রমিকদের স্বার্থ সংরক্ষণে সচেষ্ট আছেন, তারপরও বলবো বিষয়টি অগ্রাধিকার দিন। শ্রমিকদের মার্চ মাসের বেতন পরিশোধ করা হলে সরকারের দেওয়া ঋণ সুবিধা পেতে বিজিএমইএ ও বিকেএমইএ এবং সরকারের পক্ষ থেকে সর্বাত্মক সহযোগিতা পাবেন।’

মন্তব্য