‘ব্যর্থ’ স্বাস্থ্যমন্ত্রীকে বরখাস্ত করা উচিত : ন্যাপ

প্রজন্ম ডেস্ক

চীনে করোনার ভয়াবহতার পর সময় পেয়েও দুর্নীতিগ্রস্ত স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় কার্যকর প্রতিরোধ গড়ে তুলতে ব্যর্থ হয়েছে। করোনা ভাইরাসের বিরুদ্ধে মূল যোদ্ধা চিকিৎসক ও তাদের সহকর্মীদের সময়মত পিপিই দিতে পারেনি মন্ত্রণালয়। সরকারি বেসরকারি হাসপাতালের সমন্বয়ে প্রয়োজনীয় আইসিইউ বেড, ভেন্টিলেশন মজুদ ও সরবরাহ করে সমন্বিত পরিকল্পিত শক্তিশালী চিকিৎসা ব্যবস্থা গড়তে ব্যর্থ বর্তমান স্বাস্থ্যমন্ত্রীকে বরখাস্ত করা উচিত বলে জানিয়েছে বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি-বাংলাদেশ ন্যাপ।

বৃহস্পতিবার (১৬ এপ্রিল) গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে পার্টির চেয়ারম্যান জেবেল রহমান গানি ও মহাসচিব এম. গোলাম মোস্তফা ভুইয়া এ মন্তব্য করেন।

তারা বলেন, স্বাস্থ্যমন্ত্রী আর মন্ত্রণালয়ের কর্তারা শুধু বড় বড় কথাই বলেছেন। তাদের ব্যর্থতার কারণেই সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজের মেডিসিন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডা. মঈন উদ্দীন মারা গেছেন। সুনামগঞ্জের সন্তান এ ডাক্তার করোনার যুদ্ধে প্রথম সারির যোদ্ধা। সিলেটে করোনায় আক্রান্ত হলে প্রয়োজনীয় চিকিৎসা পাচ্ছিলেন না। একটা ভেন্টিলেশন পাননি। ঢাকায় আসতে এয়ার অ্যাম্বুলেন্স দূরে থাক আইসিইউ অ্যাম্বুলেন্সের জন্য কত আকুতি করেও পায়নি।

ন্যাপ নেতারা বলেন, নাটোরের লালপুরে উপোস পরিবার ও প্রতিবেশীর জন্য ত্রাণ চাইতে সরকারি হটলাইনে ফোন করেছিলেন শহিদুল ইসলাম। এতো বড় অপরাধে ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুস সাত্তার তাকে মেরে রক্তাক্ত করেছেন। এমন মহা দুঃসময় না এলে তথাকথিত জনপ্রতিনিধিরা কতটা নিষ্ঠুর ও কত নির্দয় হয় তা জানাও যেত না। নিষ্ঠুর পৃথিবীর দানবরা প্রকৃতির এমন হিংস্র প্রতিশোধেও যখন নিজেকে না শোধরিয়ে সাধারণ মানুষের মুখের গ্রাস কেড়ে নেয়, তাতে বুঝা যায় এ যাত্রায় বেঁচে গেলে আরও কতো বীভৎস চেহারায় আবির্ভূত হবেন এ জনপ্রতিনিধিরা।

তারা করোনার বিরুদ্ধে যুদ্ধে সামনের কাতারের যোদ্ধা ডাক্তার-নার্স-স্বাস্থ্যকর্মীদের প্রয়োজনীয় ব্যক্তিগত সুরক্ষা ও নিরাপত্তা নিশ্চিত, প্রণোদনা, ঝুঁকি বীমা, এককালীন সম্মানী ঘোষণার জন্য সরকারের প্রতি দাবি জানান।

মন্তব্য