জামিলুর রেজা চৌধুরীর মৃত্যুতে মন্ত্রী-এমপিদের শোক

প্রজন্ম ডেস্ক

দেশের খ্যাতিমান প্রকৌশলী জাতীয় অধ্যাপক ড. জামিলুর রেজা চৌধুরীর মৃত্যুতে গভীর শােক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী, সংসদ সদস্যসহ অন্যান্য ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান।

বাংলাদেশ জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী ড. জামিলুর রেজা চৌধুরীর মৃত্যুতে গভীর শােক ও দুঃখ প্রকাশ করে তার রুহের মাগফেরাত কামনা করেন এবং শােকসন্তপ্ত পরিবার-পরিজন ও শুভানুধ্যায়ীদের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করেন।

এছাড়া ড. জামিলুর রেজা চৌধুরীর মৃত্যুতে ডেপুটি স্পিকার মো. ফজলে রাব্বী মিয়া এমপি এবং চিফ হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরী এমপি গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন।

এক শোকবার্তায় জাতীয় সংসদের বিরোধীদলীয় নেতা রওশন এরশাদ বলেন, বাংলাদেশের প্রকৌশল জগতে অনন্য ব্যক্তিত্ব ছিলেন জামিলুর রেজা চৌধুরী। একাধারে তিনি গবেষক, শিক্ষাবিদ, প্রকৌশলী ও বিজ্ঞানী। একজন স্বনামধন্য প্রকৌশলী হিসেবে বাংলাদেশের অবকাঠামোগত উন্নয়নে তিনি যে ভূমিকা রেখেছেন দেশবাসী তা শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করবে। তার মৃত্যুতে প্রকৌশল ও শিক্ষাক্ষেত্রে যে শূন্যতা সৃষ্টি হলো তা সহজে পূরণ হওয়ার নয়।

বিরোধীদলীয় নেতা মরহুমের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন এবং তার শোক-সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।

শোকবার্তায় পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন বলেন, একুশে পদকপ্রাপ্ত বাংলাদেশের একজন খ্যাতনামা প্রকৌশলী ও শিক্ষাবিদ অধ্যাপক জামিলুর রেজা চৌধুরীর মৃত্যুতে জাতি একজন শ্রেষ্ঠ সন্তানকে হারালো। তিনি মরহুমের শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জ্ঞাপন করেন এবং তার বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করেন।

এক শোক বাণীতে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেন, ড. জামিলুর রেজা চৌধুরী ছিলেন বাংলাদেশের প্রকৌশল জগতের এক উজ্জ্বল নক্ষত্র। একজন খ্যাতনামা প্রকৌশলী, গবেষক ও শিক্ষাবিদ হিসেবে তার সুনাম বিশ্ববাসী বিস্তৃত। বিরল প্রতিভার অধিকারী এই শিক্ষাবিদের মৃত্যুতে বাঙালি জাতির অপূরণীয় ক্ষতি হলো।

আইনমন্ত্রী মরহুমের রুহের মাগফিরাত কামনা করেন এবং তার শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।

প্রবাসীকল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থানমন্ত্রী ইমরান আহমদ এক শোকবার্তায় বলেন, অধ্যাপক ড. জামিলুর রেজা চৌধুরী বাংলাদেশের অবকাঠামো ও তথ্যপ্রযুক্তির উন্নয়নে আজীবন কাজ করে গেছেন। তিনি পদ্মাসেতু প্রকল্পের বিশেষজ্ঞ প্যানেল প্রধানের দায়িত্ব পালনসহ স্বাধীন বাংলাদেশের প্রতিটি বৃহৎ ইমারত এবং অন্যান্য মেগাপ্রকল্পেও কৃতিত্বপূর্ণ অবদান রেখেছেন।

মন্ত্রী বলেন, ড. জামিলুর রেজা চৌধুরী আর্থ কোয়েক সোসাইটি, বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা) এবং গণিত অলিম্পিয়াডসহ বিভিন্ন সংগঠনের নেতৃত্ব দিয়েছেন। জাতীয় পর্যায়ে বিভিন্ন অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ তিনি একুশে পদকসহ অন্যান্য সম্মান ও পদকে ভূষিত হয়েছেন।

ড. জামিলুর রেজা চৌধুরীর সাথে ব্যক্তিগত ঘনিষ্ঠতা উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, তার মৃত্যু দেশ ও জাতির জন্য অপূরণীয় ক্ষতি। তার মৃত্যুতে দেশ একজন উজ্জ্বল নক্ষত্রকে হারালো আর সিলেটবাসী হারালো তার কৃতি সন্তানকে।

অধ্যাপক ড. জামিলুর রেজা চৌধুরীর মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করে রেলমন্ত্রী মো. নূরুল ইসলাম সুজন বলেন, অধ্যাপক জামিলুর চৌধুরী ছিলেন একজন আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন প্রকৌশলী, গবেষক, শিক্ষাবিদ, বিজ্ঞানী ও তথ্যপ্রযুক্তিবিদ। দেশের অবকাঠামো খাতে তার অসামান্য অবদান জাতি বহুকাল মনে রাখবে।

এদিকে জাতীয় অধ্যাপক ও সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা জামিলুর রেজা চৌধুরীর মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেন ও আহ্বায়ক কমিটির সাধারণ সম্পাদক ড. রেজা কিবরিয়া।

এক শোকবার্তায় তারা প্রয়াতের আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন এবং শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।

একুশে পদকপ্রাপ্ত প্রতিভাবান এ শিক্ষাবিদের মৃত্যুতে তারা বলেন, একজন স্বনামধন্য প্রকৌশলী হিসেবে তিনি দেশের অবকাঠামোগত উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছেন। জামিলুর রেজা চৌধুরী মৃত্যুতে জাতীর অপূরণীয় ক্ষতির সম্মুখীন হলো।

উল্লেখ্য, সোমবার দিবাগত রাত ২টার দিকে রাজধানীর কলাবাগানের নিজ বাসায় ‘ম্যাসিভ হার্ট অ্যাটাকে’ মারা যান একুশে পদকপ্রাপ্ত এ প্রতিভাবান অধ্যাপক। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৭৭ বছর।

অধ্যাপক ড. জামিলুর রেজা চৌধুরী ছিলেন বাংলাদেশের একজন খ্যাতনামা প্রকৌশলী, গবেষক, শিক্ষাবিদ, বিজ্ঞানী, তথ্য-প্রযুক্তিবিদ ও সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা। ২০১৮ সালের ১৯ জুন সরকার তাকে

মন্তব্য