রোজা রেখে কৃষকের ধান কেটে দিলেন স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতাকর্মীরা

প্রজন্ম ডেস্ক

শরীয়তপুর সদর উপজেলায় করোনাভাইরাসের প্রভাবে শ্রমিক সঙ্কটে পড়ায় কৃষকের ১৫০ শতাংশ জমির পাকা ধান কেটে বাড়ি পৌঁছে দিলেন জেলা ও সদর পৌরসভা স্বেচ্ছাসেবক লীগের নেতাকর্মীরা।

মঙ্গলবার (০৫ মে) সকাল ৮টা থেকে দুপুর সাড়ে ১২টা পর্যন্ত সদর উপজেলার চিতলিয়া ইউনিয়নের কাশিপুর গ্রামের কৃষক আবুল কালাম খান ও কামরুল মুন্সীর জমির পাকা ধান কেটে তাদের বাড়িতে পৌঁছে দেন। ধান কাটার নেতৃত্ব দেন শরীয়তপুর জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক তাইজুল ইসলাম সরকার ও শরীয়তপুর পৌরসভার সভাপতি জিল্লুর রহমান সবুজ।

শরীয়তপুর জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক তাইজুল ইসলাম সরকার বলেন, বর্তমানে করোনাভাইরাসের কারণে উপজেলার কৃষকরা অসহায় হয়ে পড়েছেন। ধান কাটার জন্য শ্রমিক পাওয়া যাচ্ছে না। সেজন্য আমাদের নেতাকর্মীরা কৃষকদের পাশে দাঁড়িয়েছেন। আজ স্বেচ্ছাসেবক লীগের ৩৫ নেতাকর্মী ধান কেটে আঁটি বেঁধে কৃষকের বাড়ি পৌঁছে দিয়েছে।

শরীয়তপুর পৌরসভা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি জিল্লুর রহমান সবুজ বলেন, করোনার কারণে কৃষক যেন ক্ষতিগ্রস্ত না হন সেজন্য প্রধানমন্ত্রীর ডাকে সাড়া দিয়ে ধান কাটার কাজ করা হচ্ছে। রোজা রেখে আমরা ধান কেটেছি। আগামীতে আংগারিয়া ইউনিয়নের কৃষকের ধান পাকা শুরু হলে কেটে ঘরে তুলে দেয়া হবে।

এ সময় শরীয়তপুর জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জহিরুল ইসলাম জুয়েল, সোহাগ খন, কৃষিবিষয়ক সম্পাদক সালেক খানসহ জেলা ও সদর পৌরসভা স্বেচ্ছাসেবক লীগের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

মন্তব্য