শিমুলিয়া ঘাটে ঢাকামুখী যাত্রীদের ঢল

প্রজন্ম ডেস্ক

করোনাভাইরাস পরিস্থিতির মধ্যেই মুন্সিগঞ্জের শিমুলিয়া ফেরি ঘাট ঢাকামুখী যাত্রীদের ঢল নেমেছে। তিল ধারণের ঠাঁই নেই ফেরি ঘাট আর রিকশা-আটো স্ট্যান্ডে। গত ১০ দিনের যাত্রীর ঢলকেও হার মানিয়েছে বৃহস্পতিবারের (৭ মে) ঢাকামুখী যাত্রীদের চাপ। এখন গার্মেন্টস কর্মীদের থেকেও বেশি সাধারণ যাত্রী।

শিমুলিয়া ফেরি ঘাটে গিয়ে দেখা গেছে, শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী নৌরুটে ফেরিতে করে আসছে শত শত ঢাকামুখী যাত্রী। শপিং মল ও মার্কেট খুলে দেয়ার ঘোষণায় এসব যাত্রীরা দক্ষিণবঙ্গের নিজ বাড়ি হতে লকডাউন ভেঙে ঢাকামুখী হতে শুরু করেছেন। প্রতিটি ফেরিতেই শত শত লোক পার হয়ে আসছে শিমুলিয়া ফেরি ঘাটে। এখানে এসেও যেন তিল ধারণের ঠাঁই নেই যানবাহনের স্ট্যান্ডগুলোতে। ফেরিতে যেমন চাপাচাপি আর গাদাগাদি করে শিমুলিয়া ঘাটে এসেছেন এখানে এসেও একই অবস্থা যানবাহনের জন্য।

বাস না থাকায় অটোস্ট্যান্ডগুলোতে যাত্রীদের উপচে পড়া ভিড় দেখা গেছে। ঢাকা যাওয়ার জন্য তারা হুমড়ি খেয়ে পড়ছেন। তবে বাস না পেয়ে আজও আটো, টেম্পু, নসিমন, করিমন, মাইক্রো, থ্রি হুইলার, ইয়েলো ক্যাব, রেন্ট-এ-কার ও শত শত মোটরসাইকেলে এসব যাত্রীদের ঢাকায় ফিরতে দেখা গেছে। উবার বন্ধ থাকায় উবারের মোটরসাইকেলগুলো এখন শিমুলিয়া ঘাট থেকে ঢাকায় প্রতিনিয়ত অফলাইনে যাতায়াত করছে। যারা সিঙ্গেল যাত্রী তারা মোটরসাইকেলে ঢাকায় চলে যাচ্ছেন। তবে এ পথে ঢাকায় যেতে যাত্রীদের অতিরিক্ত ভাড়া গুণতে হচ্ছে।

মাওয়া নৌ পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ ইন্সপেক্টর সিরাজুল কবির জানান, ঘাটে সকাল থেকে ঢাকামুখী যাত্রীদের ঢল দেখা গেছে। গার্মেন্টস কর্মীদের হার মানিয়েছে আজ সকালের যাত্রীর চাপ। নানা শ্রেণি-পেশার মানুষ এখন ছুটছে ঢাকার কর্মস্থলে। করোনার কোনো ভয় নেই তাদের মাঝে। মনে হচ্ছিল ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করতে তারা স্বজনদের কাছে ছুটছেন।

মাওয়া ট্রাফিক জোনের টিআই হিলাল উদ্দিন জানান, আজ সকাল থেকেই ঢাকামুখী যাত্রীর চাপ। ঘাটে বাস না থাকলেও অসংখ্য উবার ও পাঠাওয়ের মোটরসাইকেল আর গাড়ি যাত্রীদের ঢাকা নিচ্ছে। তবে তা অফলাইনে চলছে। সেই সঙ্গে নসিমন, করিমন, টেম্পু, অটো, ইয়েলো ক্যাবসহ নানা ধরনের যানবাহনে যাত্রীরা ভেঙে ভেঙে বিকল্প পথে ঢাকা যাচ্ছেন। করোনা কী সেটা বুঝেও যেন বুঝছেন না এসব যাত্রী। ঠেলাঠেলি করে কার আগে কে যানবাহনে বসবে এ রকম প্রতিযোগিতা চলছে। গত কয়েক দিনের তুলনায় আজ ঢাকামুখী যাত্রীদের চাপ ছিল বেশি।

বিআইডাব্লিউটিসি’র শিমুলিয়া ঘাটের এজিএম মো. শফিকুল ইসলাম জানান, শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ি নৌ-রুটে দিনে চার থেকে পাঁচটি ও রাতে সাত থেকে আটটি ফেরি চলাচল করছে। তবে গত কয়েকদিনের তুলনায় আজ ঢাকামুখী যাত্রীদের চাপ বেশি দেখা গেছে। প্রতিদিনই যাত্রী বাড়ছে।

মন্তব্য