চাল চুরির অভিযোগে স্ত্রীকে হত্যার পর ডোবায় ফেলেন স্বামী

প্রজন্ম ডেস্ক

বগুড়ার নন্দীগ্রামে চাল চুরির অভিযোগে গৃহবধূ ফাতেমা খাতুনকে (২০) হত্যা করেছেন তার স্বামী আল-আমিন। এ ঘটনায় নিহতের মা চাম্পা বেগম বাদী হয়ে থানায় হত্যা মামলা করেছেন।

পুলিশ জানায়, বুধবার (৬ মে) আল-আমিন আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে জানিয়েছেন, দুই বছর আগে তার সঙ্গে ফাতেমার বিয়ে হয়। তাদের সংসারে ১০ মাস বয়সী একটি ছেলে সন্তান রয়েছে। আল-আমিন পেশায় রাজমিস্ত্রির সহকারী। স্ত্রী ফাতেমা খাতুন মাঝে মধ্যেই চাল চুরি করতেন। গত মঙ্গলবার (৫ মে) বিকেলে ফাতেমা তার নানি শাশুড়ির বাড়ি থেকে আড়াই কেজি চাল চুরি করে নিয়ে আসেন।

আল-আমিন জানতে পেরে স্ত্রীকে চড়-থাপ্পড় মারেন। এ সময় স্ত্রীও স্বামীকে মারতে আসেন। একপর্যায়ে স্ত্রী ফাতেমার গলায় রশি পেঁচিয়ে শ্বাসরোধে হত্যা করে ডোবায়

ফেলে আসেন আল-আমিন। এরপর রাতেই স্ত্রীকে খোঁজাখুঁজির নাটক শুরু করেন। পরদিন বুধবার সকালে ওই ডোবার পাশেই আল-আমিন লোকজন নিয়ে বিড়ি খাওয়া শুরু করেন। এ সময় নিজেই স্ত্রীর মরদেহ দেখতে পেয়ে ডোবা থেকে মরদেহ তুলে আনেন।

নিহত ফাতেমা খাতুন নন্দীগ্রাম উপজেলার ফোকপাল গ্রামের রমজান আলীর মেয়ে।

এ বিষয়ে নন্দীগ্রাম থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ শওকত কবির বলেন, স্ত্রীকে হত্যার কথা স্বীকার করে বিজ্ঞ আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন আল-আমিন। এ ঘটনায় থানায় হত্যা মামলা করা হয়েছে।

মন্তব্য