স্মার্টফোন কেনার টাকার জন্য শিশুকে অপহরণ করে হত্যা করল কিশোর

প্রজন্ম ডেস্ক

পঞ্চগড় দেবীগঞ্জে শিশু মোবাশ্বের হোসেনকে (৫) গলাকেটে হত্যার ঘটনায় আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে সিয়াম হোসেন মিঠু (১৬)। অপহরণের পর ২০ হাজার টাকা মুক্তিপণ আদায় করে ভালো একটি মোবাইল ফোন কেনাই ছিল তার উদ্দেশ্য। কিন্তু শিশুটি বাড়িতে ফিরে যাওয়ার জন্য বিরক্ত করায় গলা কেটে হত্যা করে মিঠু।

সোমবার (১১ মে) কিশোর সিয়াম হোসেন মিঠুকে পঞ্চগড়ের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. মিনহাজুর রহমানের আদালতে হাজির করে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি গ্রহণ করা হয়।

দেবীগঞ্জ থানা পুলিশের ওসি (তদন্ত) মো. শাহ আলম জানান, মিঠু পুলিশি জিজ্ঞাসাবাদে গলাকেটে হত্যার কথা স্বীকার করেছে। তার দেয়া তথ্যেই শিশুর লাশ উদ্ধার করা হয়।

পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ইউসুফ আলী জানান, গ্রেফতার কিশোর বখাটে ধরনের। সে শিশুটিকে অপহরণ করে তার পরিবারের কাছে ২০ হাজার টাকা মুক্তিপণ আদায় করতে চেয়েছিল। উদ্দেশ্য ছিল মুক্তিপণের টাকা দিয়ে ভালো মোবাইল ফোন কিনবে। শিশুটি তাকে বিরক্ত করা শুরু করলে সে শিশুটিকে গলা টিপে অজ্ঞান করে। একপর্যায়ে অবস্থা নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গেলে সে পালিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়। কিন্তু শিশুটি বেঁচে থাকলে ধরা পড়ে যাওয়ার ভয়ে শিশুটিকে গলাকেটে হত্যা করে।

দেবীগঞ্জ উপজেলার ভাওলাগঞ্জে অপহরণের পর পাঁচ বছরের ওই শিশুকে হত্যার অভিযোগে ১০ মে কিশোর মিঠুকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গ্রেফতারের পর পুলিশকে দেয়া স্বীকারোক্তি ও তথ্যে নীলফামারীর ডোমার থানা পুলিশের সহায়তায় দেবীগঞ্জ থানা পুলিশ ডোমারের ভোগডাপুড়ি ইউনিয়নের ডাঙ্গাপাড়ায় একটি বেতবাগান থেকে শিশুটির গলাকাটা লাশ উদ্ধার করা হয়।।

মন্তব্য