ঢাকা থেকে পালিয়ে আসা করোনা আক্রান্ত নারীকে আশাশুনি থেকে উদ্ধার

প্রজন্ম ডেস্ক

ঢাকা থেকে পালিয়ে আসা করোনা রোগীকে অবশেষে জেলার আশাশুনি উপজেলার কুল্যা ইউনিয়নের মহাজনপুর মাঠ থেকে উদ্ধার করতে সক্ষম হয়েছে পুলিশ।

দীর্ঘ ৪ ঘণ্টার শ্বাসরুদ্ধকর অভিযানের পর তাকে উদ্ধার করা সম্ভব হয়। করোনা আক্রান্ত ওই নারী আশাশুনি উপজেলার বুধহাটা ইউনিয়নের বেউলা গ্রামের বাসিন্দা।

বুধবার (১৩ মে) রাত ১০টার দিকে তাকে উদ্ধার করে তাকে সাতক্ষীরা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে করোনা ইউনিটে পাঠানো হয়েছে।

রাতে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সাতক্ষীরা পুলিশ সুপার মো. মোস্তাফিজুর রহমান।

পুলিশ সুপার মো. মোস্তাফিজুর রহমান জানান, এর আগে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি) থেকে জানানো হয় যে, করোনা আক্রান্ত এক রোগী ঢাকা থেকে পালিয়ে সাতক্ষীরায় এসেছে। তার অবস্থান আশাশুনির কোথাও। মোবাইল ফোন ট্র্যাংকিংয়ের মাধ্যমে তার অবস্থান শনাক্ত করা হয়েছিল। তবে সেই বাড়িতে গিয়ে তালাবদ্ধ অবস্থায় পাওয়া যায়। সেখানে কেউ ছিল না। পরে আক্রান্ত নারী তার এক মৃত আত্মীয়ের বাড়িতে গেলে সেখানেও অভিযান চালায় পুলিশ। কিন্তু আত্মীয়দের সহযোগিতায় সেখান থেকেও পালিয়ে যান তিনি।

পুলিশ প্রযুক্তি ব্যবহার করে ট্র্যাকিংয়ের মাধ্যমে তার অবস্থান শনাক্ত করার চেষ্টা করলেও কিছুক্ষণ পরপর স্থান পরিবর্তন করায় তাকে পেতে বেগ পেতে হয়। পরে তাকে উদ্ধার করা হয়।

এদিকে, আশাশুনি থানা পুলিশের অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. মাহফুজুর রহমান জানান, স্থানীয়দের মারফত জানা যায় যে, তিনি পার্শ্ববর্তী কুল্যা ইউনিয়নের কচুয়া গ্রামে এক মৃত আত্মীয়ের বাড়িতে গেছেন। সেখানে গিয়ে জানা যায়, তিনি কচুয়া আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাইদ ঢালীর বাড়িতে আছেন। সেখানে গেলে প্রথমে জানানো হয়, ওই নারী তাদের বাড়িতে যাননি। 

পরে পুলিশ মাইকিং করে এলাকাবাসীর সহযোগিতা চাইলে এলাকাবাসী এগিয়ে এসে জানায়, ওই নারী সাইদ ঢালীর বাড়িতে এসেছিলেন। তিনি সাইদ ঢালীর ভাইয়ের বাড়িতে দুপুরে খেয়ে কিছুক্ষণ বিশ্রামও নিয়েছেন। পরবর্তীতে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাইদ ঢালীর এক ভাইপো মোটরসাইকেলে করে তাকে অন্যত্র দিয়ে আসে।

এরই মধ্যে সন্ধ্যা ঘনিয়ে আসে। সবশেষে মহাজনপুর মাঠ থেকে তাকে উদ্ধার করা সম্ভব হয়। রাতেই তাকে সাতক্ষীরা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

মন্তব্য