পাটুরিয়ায় ফেরি ঘাট ভাঙনের ঝুঁকিতে

প্রজন্ম ডেস্ক

ঈদ শেষে ঢাকায় ফিরতে শুরু করেছে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১টি জেলার মানুষ। তাতে চাপ বেড়েছে পাটুরিয়া ফেরিঘাটে। একই সাথে পদ্মার উত্তালল ঢেউয়ে ভাঙনের মুখে পড়েছে আরিচা-পাটুরিয়া ঘাট এলাকা।

ভাঙনে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় ফেরিতে ওঠা-নামাও ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠছে। ফেরিতে যানবাহন উঠতে-নামতে স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি সময় লাগছে।

বৃহস্পতিবার (২৮ মে) বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন করপোরেশনের (বিআইডব্লিউটিসি) পাটুরিয়া কার্যালয়ের উপমহাব্যবস্থাপক জিল্লুর রহমান জানান, পদ্মায় পানি বেড়ে যাওয়ায় ফেরিতে যানবাহন ওঠা-নামায় কিছুটা বেশি সময় লাগছে।

ভাঙন ঠেকাতে বিআইডব্লিউটিএ জিও ব্যাগ ফেলছে। সকালের দিকে কিছুটা সমস্যা হলেও বিকেলের দিকে ঘাটগুলো ঠিক করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

জিল্লুর রহমান বলেন, ‘বহরে মোট ১৭টি ফেরি থাকলেও ছোট-বড় আটটি ফেরি দিয়ে যানবাহন পারাপার করা হচ্ছে। যানবাহনের চাপ বাড়লে বাকি ফেরিগুলো দিয়ে পারাপার করা হবে।’

সরেজমিন ঘাটে দেখা গেছে পাটুরিয়া ঘাটে প্রতিটি ফেরিতে দেড় থেকে তিন শতাধিক যাত্রী পারাপার হচ্ছেন।

মানিকগঞ্জে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (শিবালয় সার্কেল) তানিয়া সুলতানা বলেন, ‘ফেরি ঘাটে বিলম্ব হলেও সড়কে কোনো যানজট নেই। নেই কোনো যাত্রী দুর্ভোগ। তবে, অতিরিক্ত ভাড়া নেওয়ার ব্যাপারে নজরদারি চালানো হচ্ছে।’

এ প্রসঙ্গে গোলড়া হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মনিরুল ইসলাম বলেন, ‘সরকারি নির্দেশনার কারণে মোটরসাইকেল, প্রাইভেটকার, মাইক্রোবাসসহ অন্যান্য

ছোট গাড়ির বিরুদ্ধে মামলা করা যাচ্ছে না। এই সুযোগটিই নিচ্ছেন চালকরা।’

মন্তব্য