শিশু জান্নাতুল হত্যার লোমহর্ষক বিবরণ দিলেন গৃহকর্মী ফাতেমা

প্রজন্ম ডেস্ক

চাঁদপুরের শাহরাস্তিতে পাঁচ বছরের শিশু জান্নাতুল মাওয়াকে নিজের ওড়না ও কাপড়ের টুকরো দিয়ে হাত-পা বেঁধে বাড়ির পাশের ডোবায় পানিয়ে চুবিয়ে নির্মমভাবে হত্যার কথা স্বীকার করে ঘটনার লোমহর্ষক বিবরণ দিয়েছেন গৃহকর্মী ফাতেমা বেগম।

শিশু জান্নাতুল মাওয়া হত্যার ঘটনায় তার মা কাজল রেখা বাদী হয়ে রোববার (৭ জুন) দুপুরে শাহরাস্তি থানায় মামলা করেন। মামলায় গ্রেফতার ফাতেমা বেগম চাঁদপুরের আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দীতে অপরাধের দায় স্বীকার করেছেন। তাকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

শাহরাস্তি থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. শাহ আলম জানান, দীর্ঘ পাঁচ মাস পর গত ৬ জুন (শনিবার) কাজল রেখার ঘরে ফের কাজ করতে যান গৃহকর্মী ফাতেমা বেগম (২৫)। কাজের ফাঁকে সঙ্গে নিয়ে আসা নিজের সন্তান আরাফাতকে (৫) খুঁজে পাচ্ছিলেন না তিনি। এ সময় তার সন্তানকে খুঁজে আনতে জান্নাতুল মাওয়াকে বলেন ফাতেমা। কিন্তু শিশুটি অন্যমনস্ক থাকায় ক্ষুব্ধ হন তিনি। এতে কৌশলে জান্নাতুল মাওয়াকে বাড়ির বাইরে ডেকে নেন ফাতেমা। এ সময় পাশের ডোবার কাছে নিয়ে নিজের ওড়না ও কাপড়ের টুকরো দিয়ে হাত-পা বেঁধে তাকে ডোবায় ফেলে দেন।

ওসি আরও জানান, ফাতেমার শিশু সন্তান আরাফাত এমন দৃশ্য দেখে ফেলে। সেও পুলিশের কাছে হত্যার ঘটনার বর্ণনা দিয়েছে।

প্রকাশ, চাঁদপুরের শাহরাস্তি উপজেলা টামটা উত্তর ইউনিয়নের বলশিদ গ্রামের পুরান তালুকদার বাড়িতে গত শনিবার কাজল রেখার পাঁচ বছরের শিশু জান্নাতুল মাওয়াকে নির্মমভাবে হত্যা করেন গৃহকর্মী ফাতেমা বেগম।

মন্তব্য