আ.লীগের ডিজিটাল প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী ‘সময়োপযোগী’

প্রজন্ম ডেস্ক

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ৭১তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী করোনা মহামারির কারণে নেতাকর্মীদের সমাগমে জাঁকজমকপূর্ণভাবে করতে না পেরে অনলাইনে বিভিন্ন কর্মসূচি উদযাপন করছে ক্ষমতাসীন দলটি। আর বর্তমান প্রেক্ষাপটে এই উদ্যোগকে বিরোধী রাজনীতিকরাও ‘সময়োপযোগী’ বলে আখ্যায়িত করেছেন।

অনলাইনে কর্মসূচির মাধ্যমে প্রাতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপনের প্রকৃত স্বাদ না পেলেও বিষয়টিকে দেশে যে ডিজিটালাইজেশনের ছোঁয়া লেগেছে, তার ডিসপ্লে (প্রদর্শন) হিসেবে দেখছেন অনেকে।

বৈশ্বিক মহামারি করোনার প্রাদুর্ভাবের কারণে এবার সীমিত আকারে কর্মসূচি উদযাপন করেছে আওয়ামী লীগ। প্রতিবছর নেতাকর্মীদের সমাগমে জাঁকজমকপূর্ণভাবে কর্মসূচি উদযাপন করে দলটি।

এবার জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে আরো বেশি জাঁকজমকপূর্ণ করার ইচ্ছা ছিলো। কিন্তু শুধু  অনলাইনভিত্তিক কর্মসূচি উদযাপন এবং প্রচরণা চালিয়েছে দলটি। আর প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর সব ধরনের খরচ বাঁচিয়ে করোনায় দূরবস্থায় থাকা মানুষের কল্যাণে ব্যয় করছে।

অনলাইনে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপনের বিষয়ে ১৪ দলীয় জোটের অন্যতম শরিক দল বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন বলেন, ‘‘এখন সবকিছুই অনলাইনভিত্তিক অর্থাৎ ডিজিটাইজেশনের মাধ্যমে হচ্ছে। এতে জনগণের কাছে দ্রুতই পৌঁছে যাওয়া যাচ্ছে।’’

তিনি বলেন, ‘‘করোনা মহামারির কারণে এভাবে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন করে আওয়ামী লীগ সঠিক সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এটা দেশের ডিজিটালাইজেশনের ক্ষেত্রে অনন্য অগ্রগতি। এতে জনগণের সম্পৃক্ততা আরো বাড়বে এবং দল এগিয়ে যাবে।’’

জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জাসদের একাংশের সভাপতি শরীফ নুরুল আম্বিয়া বলেন, ‘‘স্বাভাবিকভাবে যেভাবে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন করা হয়, আর অনলাইনে উদযাপন এক নয়। নেতাকর্মীরা দুটোকে দুইভাবে উপলব্ধি করে। যে কোনো দলের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী ওই দলের নেতাকর্মীদের কাছে আবেগ-অনুভুতির বিষয়। তবে দেশের বর্তমান সংকটে এভাবে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন করা ছাড়া উপায় নেই। এতে হয়তো অনুষ্ঠান জাঁকজমকপূর্ণ এবং ভালোভাবে করার সুযোগ পাওয়া যায়নি, তবে সীদ্ধান্ত সময়পোযোগী হয়েছে।’’

জাসদের আরেকাংশের সভাপতি হাসানুল হক ইনু বলেন, ‘‘প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর ক্ষেত্রে প্রতি বছরের অগ্রগতি, ভালো-মন্দ, অর্জন-বিসর্জন নিয়ে বিচারবিশ্লেষণ, আলোচনা-সমালোচনা হয়। তবে দেশের বর্তমান পরিস্থিতিতে এবার সেই সুযোগ কম থেকেছে। সার্বিক বিষয় চিন্তা করে আওয়ামী লীগ অনলাইনে যেভাবে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর কর্মসূচি নিয়েছে, তাকে সাধুবাদ জানাই।’’

মন্তব্য