৩ ক্রিকেটারকে বিসিবি’র সমন

৩ ক্রিকেটারকে বিসিবি’র সমন

প্রজন্ম ডেক্স

কয়েকজনকে আমরা শাস্তি দিয়েছি, দিচ্ছি। এর পরও যদি দেখি কাজ হচ্ছে না, তাহলে তো কড়া শাস্তিÍ দিতেই হবে। কড়া শাস্তিÍ আমার কাছে একটিই। সে আর জাতীয় দলে খেলতে পারবে না।

আগের সন্ধ্যায় হজ করে দেশে ফেরা বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান কাল দুপুরেই বসেছিলেন ওয়ানডে অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা ও জাতীয় দলের হেড কোচ স্টিভ রোডসের সঙ্গে। সেখানে এশিয়া কাপের রণ পরিকল্পনাসহ আরো অনেক কিছুর সঙ্গে আলোচনায় নিয়মিত শৃঙ্খলা ভঙ্গ করে যেতে থাকা সাব্বির রহমান প্রসঙ্গ ওঠাও অবধারিত ছিল। তা উঠেছেও। সেখানে ক্ষুব্ধ বোর্ড সভাপতি সাব্বিরকে দীর্ঘ মেয়াদে নিষিদ্ধ করার মতও দিয়ে ফেলেছিলেন। কিন্তু টিম ম্যানেজমেন্ট তাঁর সে ক্ষোভ প্রশমনে কিছুটা সফলও হয়েছে। ২০১৯ সালের বিশ্বকাপ সামনে রেখে টিম ম্যানেজমেন্টের সল্প-মেয়াদি নিষেধাজ্ঞার সে সুপারিশ নাজমুলের মেনে নেওয়ার ব্যাপারটিও শেষ পর্যন্ত গোপন থাকেনি।

কাজেই আবারও লঘুদন্ডে পার পেয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা সাব্বিরের। যদিও সে ঘোষণা আসবে আরো পরে। সংবাদমাধ্যমের সামনে এসে নাজমুল জানিয়েছেন, আত্মপক্ষ সমর্থনের সুযোগ দেওয়া হচ্ছে অভিযুক্তদের। একাধিক ক্রিকেটারকে শনিবার বিসিবি শৃঙ্খলা কমিটির পক্ষ থেকে তলব করা হয়েছে বলেও জানিয়েছেন তিনি, ‘একজনকে আত্মপক্ষ সমর্থনের সুযোগ না দিয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া ঠিক হবে না। সে জন্য ডিসিপ্লিনারি কমিটি ওদের ডেকেছে। কথা বলে সিদ্ধান্ত নেবে। যেটা হওয়া উচিত, তেমন সিদ্ধান্তই আসবে।’ এখানে ‘ওদের’ বলতে সাব্বিরের সঙ্গে শৃঙ্খলা কমিটির সামনে হাজিরা দেবেন মোসাদ্দেক হোসেন ও নাসির হোসেনও। সম্প্রতি স্ত্রী যৌতুকের মামলা করেছেন মোসাদ্দেকের বিরুদ্ধে।

আর এক কথিত মডেলের সঙ্গে নাসিরের অশোভন ফোনালাপ ইউটিউবে চলে আসার পর থেকেও তো কম সমালোচনার ঝড় বইছে না। অবশ্য স্ত্রীর মামলায় অভিযুক্ত মোসাদ্দেক ক্রিকেট প্রশাসনের কাছ থেকে এখন পর্যন্ত যে ‘লাইফলাইন’ পেয়ে যাচ্ছেন, তাঁর এশিয়া কাপের দলে থাকাই এর প্রমাণ।

সাব্বিরের সেটি পাওয়ার কোনো কারণই নেই। নাজমুল বললেন সে জন্যই এশিয়া কাপের দলেও নেই সাব্বির, ‘সাব্বিরের স্কোয়াডে না থাকায় তো এর (শৃঙ্খলাভঙ্গ) একটা প্রভাব আছেই।’ একই সঙ্গে নিজেকে ভালো মানুষ হিসেবে গড়ে তোলার কাজটি ক্রিকেটারদেরই করতে হবে বলেও মনে করেন তিনি, ‘সব কিছুর মধ্যে বিসিবিকে জড়ালে হবে না।

বিসিবির পক্ষে সব কিছু করাও সম্ভব না। এই যেমন ধরুন, ডিভোর্স কি বাংলাদেশে হয় না? কেউ কাউকে ডিভোর্স দিতে চাইলে আমরা কী করতে পারি? কেউ একাধিক বিয়ে করলেও আমাদের কিছু করার নেই। আমরা তো এটা বলতে পারি না যে ক্রিকেট যারা খেলবে, তারা একাধিক বিয়ে করতে পারবে না। তবে আমরা মনে করি ক্রিকেটাররা আদর্শ। অনেকে ওদের অনুসরণ করে।

সে জন্য অবশ্যই তাদের ভালো মানুষ হতে হবে। এটার জন্য যা যা করার দরকার, করতে হবে।’ একই সঙ্গে কঠোর হওয়ার বার্তাও দিয়ে রেখেছেন নাজমুল, ‘কয়েকজনকে আমরা শাস্তি দিয়েছি, দিচ্ছি। এর পরও যদি দেখি কাজ হচ্ছে না, তাহলে তো কড়া শাস্তি দিতেই হবে। কড়া শাস্তি আমার কাছে একটিই। সে আর জাতীয় দলে খেলতে পারবে না।’ এই ক্রিকেটারদের জন্য বোর্ড বিদেশি মনোবিদ আনার চিন্তাভাবনা করছে বলেও কাল জানিয়েছেন নাজমুল।

মন্তব্য