ধর্ষণের পর গলায় ফাঁস লাগিয়ে হত্যা করা হয় মিষ্টিকে

প্রজন্ম ডেস্ক

হবিগঞ্জের চুনারুঘাটের রোকসানা আক্তার মিষ্টি (২২) হত্যাকাণ্ডের রহস্য দীর্ঘ ৭ মাস পর উদঘাটন করতে সক্ষম হয়েছে পুলিশ। পরকীয়ার জের ধরে আসামিরা মিষ্টিকে ধর্ষণের পর গলায় ওড়না দিয়ে ফাঁস লাগিয়ে হত্যা করে। হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত আসামি আফসার মিয়া (২৮) ও তার স্ত্রী রিপা বেগম (২৪) বুধবার (৯ সেপ্টেম্বর) বিকেলে হবিগঞ্জের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা চুনারুঘাট থানার ওসি (তদন্ত) চম্পক দাম বলেন, ৬ ফেব্রুয়ারি রাতে চুনারুঘাটের রানীগাঁও যুগীর টিলা নামক স্থানে অজ্ঞাত এক তরুণীর লাশ পাওয়া যায়। পুলিশ লাশ উদ্ধার করে চুনারুঘাট থানায় নিয়ে আসে। পরে তরুণীর নাম ঠিকানা নিশ্চিত না হওয়ায় পুলিশ বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে চুনারুঘাট থানায় মামলা দায়ের করে।

ঘটনার ৭ মাস পর আসামি আফসারের সঙ্গে ঢাকার পাওনাদার ফারুকের মারামারি ঘটনার সূত্র ধরে পুলিশ তথ্য প্রযুক্তি সহায়তায় আসামি চুনারুঘাট উপজেলার পাচারগাঁও গ্রামের আবদুল খালেকের ছেলে আফসার মিয়া (২৮) ও তার স্ত্রী রিপা বেগম (২৪) কে চুনারুঘাট পুলিশ গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়।

এ ঘটনায় বুধবার রাতে হবিগঞ্জ পুলিশ সুপার কার্যালয়ে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে পুলিশ সুপার মোহাম্মদ উল্যা সাংবাদিকদের বলেন, রোকসানা আক্তার মিষ্টি মৌলভীবাজারে একটি কম্পানির বিক্রয় প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করতেন। মিষ্টি নোয়াখালী জেলার চাটখিল উপজেলার ষোল্লা গ্রামের খুর্শেদ আলী মজুমদারের মেয়ে।

মৌলভীবারে রিপার সঙ্গে মিষ্টির পরিচয় হয়। পরিচয়ের সূত্র ধরে মিষ্টি, রিপা ও তার স্বামী আফসারের সঙ্গে একই বাসায় ভাড়া থাকতেন। এ সুবাদে মিষ্টির সঙ্গে আফসারের পরকিয়া প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। এ নিয়ে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়া বিবাদ লেগেই থাকত। এ পর্যায়ে রিপা তার বাবার বাড়ি চলে যায়।

পরে আফসার মিষ্টিকে দুনিয়া থেকে সরিয়ে ফেলবে বলে প্রতিশ্রুতি দিলে সে বাড়ি ফিরে আসে। আফসারের গ্রামের বাড়ি চুনারুঘাটের পাচারগাঁও গ্রামে মিষ্টিকে নিয়ে ৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০ রাতে বেড়াতে আসে। রাতে খাওয়া-দাওয়া শেষে তাকে আসামিরা কৌশলে রানীগাঁও ও চাটপাড়া গ্রামের মাঝামাঝি হাওড়ের যুগীর আসন টিলায় নিয়ে আফসার মিষ্টিকে ধর্ষণ করে এবং তার ওড়না দিয়ে রিপা ও তার স্বামী মিষ্টিকে গলায় ফাঁস লাগিয়ে হত্যা করে। পরে মৃত্যু নিশ্চিত হয়ে তারা মিষ্টিকে টিলার নিচে ফেলে চলে যায়।

মন্তব্য