ছোট ভাই মাকে বলল, ‘আপুকে পেছনের রুমে নিয়ে গেছে এক ভাইয়া’

প্রজন্ম রিপোর্ট

ভালোবাসা দিবসে রুম ডেটিংয়ের নামে প্রেমিকাকে ধর্ষণের অভিযোগে দায়ের করা মামলায় প্রেমিক এমরান সরদারকে (২১) জেলহাজতে পাঠিয়েছে ঝালকাঠি সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত। মঙ্গলবার (১৬ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ঝালকাঠি থানার উপপরিদর্শক মো. হযরত আলী শহরের পূর্ব চাদকাঠি ব্রাক মোড় এলাকা থেকে ধর্ষক এমরানকে গ্রেপ্তার করে আদালতে সোপর্দ করে।

এর আগে, মঙ্গলবার সকালে ঝালকাঠি থানায় নির্যাতিতার মা মোসা. দিপা ওরফে আখি বেগম বাদী হয়ে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন ২০০০ (সংশােধনী) ২০০৩ এর ৯ (১) ধরায় মামলা নং -১৫ দায়ের করেন।

মামলার বিবরণে উল্লেখ করা হয়েছে, ৮মাস পূর্বে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে ভিকটিম (১৪) এর সাথে নলছিটির কান্ডপাশা গ্রামের মো. আলমগীর সরদারের ছেলে এমরান সরদারের সাথে পরিচয় হয় এবং বিভিন্ন সময় বাদিনীর অজান্তে কথাবার্ত বলে আসছে। গত ১৪ ফেব্রুয়ারি ভ্যালেন্টাইন ডে উপলক্ষে (ভালোবাসা দিবস) বিকেল সাড়ে ৪টায় বাদিনী ও তার স্বামী তাদের মালিকানাধীন চায়ের দোকানে গেলে খালি বাসায় ভিকটিমের সাথে দেখা করতে আসে।

রাত ৭টা ৪৫মিনিটের দিকে বাদিনীর দোকানে এসে ছোট ছেলে হৃদয় (৭) বাসায় এক ভাইয়া এসে আপুকে নিয়ে পেছনের রুমে গেছে বলে জানালে বাদিনী দৌড়ে এসে তার মেয়েকে ধর্ষণরত অবস্থায় দেখে চিৎকার দেয়। এসময় অভিযুক্ত এমরান সরদার দ্রুত পালিয়ে যায় বলে অভিযোগ করেন।

এ বিষয়ে তদন্তকারী কর্মকর্তা থানার উপপরিদর্শক মো. হযরত আলী জানায়, আসামিকে গ্রেফতার করে আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে। পরবর্তী তদন্ত কার্যক্রম অব্যহত রয়েছে।

ঝালকাঠি থানার ওসি মো. খলিলুর রহমান জানায়, ভিকটিমের মায়ের লিখিত অভিযোগ পেয়েই মামলা রুজু করা হয়েছে। পুলিশ দ্রুত অভিযান চালিয়ে আসামিকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়েছে।

মন্তব্য