যশোরে এক নারীকে বাড়িতে সাজাভোগের আদেশ

প্রজন্ম রিপোর্ট

মাদক মামলায় দুই বছরের দণ্ডপ্রাপ্ত পঞ্চাষোর্ধ আজিমন বেগমকে ৭ শর্তে বাড়িতেই বসবাসের আদেশ দিয়েছে আদালত। গতকাল সোমবার যশোরের যুগ্ম দায়রা জর্জ শিমুল কুমার বিশ্বাস সমাজসেবা অধিদপ্তরের প্রবেশন অফিসারের নজরদারিতে থেকে ভিন্নধর্মী এই রায় দিয়েছেন। দণ্ডপ্রাপ্ত বৃদ্ধা আজিমন বেগম সদর উপজেলার পুলেরহাট-কৃষ্ণবাটি গ্রামের মনির শেখের স্ত্রী।


মামলার বিবরণে জানা গেছে, ২০০৯ সালের ২০ আগস্ট বেনাপোলের ত্রিমোনী হরিমালী গেট নামকস্থান থেকে আজিমন বেগমকে ১০ বোতল ফেনসিডিলসহ আটক করে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর যশোরের কর্মকর্তারা। এই ঘটনায় তার বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের পরিদর্শক সলিমুল্লাহ বাদী হয়ে বেনাপোল থানায় মামলা করেন। তদন্ত শেষে তার বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশিটও দেয়া হয়। স্বাক্ষ্য গ্রহণ শেষে দোষী সাব্যস্ত হওয়ায় বিচারক আজিমন বেগমকে দুই বছরের দণ্ড দিয়েছেন। তবে ওই দণ্ড হাজতে নয় বরং বাড়িতেই তিনি থাকতে পারবেন। কিন্তু সাতটি শর্ত দেয়া হয়েছে।

শর্ত গুলো হলো, সমাজসেবা অধিদপ্তরের প্রবেশন অফিসারের নজরদারিতে থেকে কোন প্রকার অপরাধের সাথে জড়িত থাকতে পারবেননা। সর্বত্র শান্তি বজায় রাখবেন এবং সকলের সাথে সদাচারণ করিবেন। আদালত অথবা আইন প্রয়োগকারী সংস্থা তাকে কখনো তলব করিলে শাস্তি ভোগ করিবার জন্য প্রস্তুত হয়ে যথাস্থানে হাজির হবেন। কোন প্রকার মাদক সেবন, বহন, সংরক্ষণ এবং সেবনকারী, বহনকারী ও হেফাজতকারীর সাথে মেলামেশা বা চলাফেরা করতে পারবেননা।

আদালত কর্তৃক প্রবেশন অফিসারের তত্বাবধানে থেকে নিজের বাস স্থান ও জীবন ধারণের উপায় সর্ম্পর্কে অবহিত করিবেন। এই সময়কালীন প্রবেশন অফিসারের লিখিত অনুমতি ব্যতিত নির্দিষ্ট এলাকার বাইরে যেতে পারবেননা। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন, সংশ্লিষ্ট আদালতের অতিরিক্ত সরকারী কৌশলী আইয়ুব খান বাবুল।

মন্তব্য