দুই কন্যার সাথে কথা বলতে না দেয়ায় অভিমানি বাবা, আগুন দিয়ে আত্মহত্যা

প্রজন্ম রিপোর্ট

বরিশালের আগৈলঝাড়া উপজেলায় দাম্পত্য কলহের জের ধরে স্ত্রীর সঙ্গে অভিমান করে নিজের গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন লাগিয়ে আত্মহত্যা করেছেন সাগর ফকির নামের এক ব্যক্তি। গায়ে আগুন লাগানোর পর চারদিন মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ে সোমবার (১২ এপ্রিল) বেলা ১১টায় ঢাকার শেখ হাসিনা বার্ন ইনস্টিটিউটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু হয় তার।

জানা গেছে, নিজের শরীরে আগুন ধরিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করা সাগরকে বাঁচাতে উন্নত চিকিৎসার জন্য আগৈলঝাড়া হাসপাতাল থেকে রোববার বিকেলে ঢাকায় পাঠানো হয়। আহত সাগরের মা আমেনা বেগম হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। সাগরের মৃত্যুর বিষয়টি তার বাবা লিয়াকত ফকির নিশ্চিত করেছেন।

লিয়াকত বলেন, সাগরের সঙ্গে রাগ করে দুই শিশুকন্যাকে নিয়ে স্ত্রী রাশিদা ছয় মাস আগে বাবার বাড়ি মাদারীপুরের টেকেরহাটে চলে যায়। ০৯ এপ্রিল বিকেলে স্ত্রীর মোবাইলে কল দিয়ে মেয়েদের সঙ্গে কথা বলতে চায় সাগর। পাশাপাশি মেয়েদের নিয়ে স্ত্রীকে বাড়ি আসতে অনুরোধ করে। কিন্তু ফরিদা বেগম ফিরবে না বলে জানায়। এমনকি সাগরকে তার মেয়েদের সঙ্গে কথা বলতেও দেয়নি। মূলত সন্তানদের কাছে না পেয়ে অভিমানে গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয় সাগর।

বাঁচাতে গিয়ে অগ্নিদগ্ধ হয় তার মা আমেনা বেগম এবং চাচাতো ভাই রমজান ফকির। তিনি আরও বলেন, রমজানের শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় রোববার ঢাকায় পাঠানো হয়েছে। আমেনা বেগম আগৈলঝাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন। আগৈলঝাড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) গোলাম সরোয়ার বলেন, ‘সাগর ফকিরের ময়নাতদন্ত হবে ঢাকার হাসপাতালে। এ ঘটনায় কেউ অভিযোগ দিলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেব আমরা।’

মন্তব্য