সেই সিরিয়াল ধর্ষকের যাবজ্জীবন!

প্রজন্ম ডেস্ক

যশোরে বহুল আলোচিত ৬ শিশু ছাত্রী ধর্ষণ মামলায় আমিনুর রহমান নামে একজনকে যাবজ্জীবন দিয়েছেন আদালত। আজ বুধবার সকালে যশোরের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-১ এর বিচারক (জেলা জজ) টিএম মুসা এই রায় ঘোষণা করেন।

আমিনুর রহমান বিভিন্ন সময়ে শহরের খড়কি এলাকার মাওলানা শাহ আব্দুল করিম (রহ.) সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের অন্তত ৬ ছাত্রীকে ধর্ষণ করে। সে সাতক্ষীরার কালীগঞ্জ উপজেলার গড়িমহল গ্রামের বাসিন্দা।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন যশোরের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুরালের বিশেষ পিপি এম ইদ্রিস আলী।

বিষয়টি নিয়ে তারা স্থানীয়ভাবে আলোচনা করে গত ১ মে কোতোয়ালি  থানায় অভিযোগ দেন। এতে তার বিরুদ্ধে থানায় নিয়মিত মামলা হয়। তখন আমিনুর বেনাপোলে পালিয়ে যায়। পরে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা কোতোয়ালি  থানার এসআই হায়াত মাহমুদ খান ৫ মে আমিনুর রহমানকে আটক করে আদালতে সোপর্দ করেন। এরপর তিনি ছয় শিশু ছাত্রীকে ধর্ষণের কথা স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দেয়। এছাড়া আদালত ভুক্তভোগী ছয় শিশুর জবানবন্দী গ্রহণ করেন। এর আগে যশোর জেনারেল হাসপাতালে চার শিশুর ডাক্তারি পরীক্ষা করা হয়।

মামলা সূত্রে জানা যায়, যশোর শহরের খড়কি দক্ষিণপাড়া রেল লাইনের পাশে এহসানুল হক সেতু নামে একজনের বাগান বাড়ি রয়েছে। ওই বাড়িতে আমিনুর রহমান তত্বাবধায়কের দায়িত্ব পালন করতো। ওই বাড়িতে ছোট্ট একটি গোলপাতার ঘরে আমিনুর অবস্থান করতো। ওই বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা বাগানবাড়িতে আম কুড়াতে যেতো। তখন কেয়ারটেকার আমিনুর মেয়েদের আম, চকলেট, ক্যাটবেরি দেয়াসহ বিভিন্ন লোভ দেখিয়ে ধর্ষণ করতো। এভাবে প্রথমে আমিনুর তিনটি শিশু মেয়েছে ধর্ষণ করে। এ নিয়ে স্থানীয়ভাবে সালিশ বিচার হয়। পরে আরো তিনজনকে ধর্ষণ করে সে। এক পর্যায়ে একটি শিশুরর অভিভাবক অন্য একজনের অভিভাবককে জানান গত জানুয়ারি থেকে এ পর্যন্ত বিভিন্ন মেয়েকে আমিনুর একাধিকবার ধর্ষণ করেছে।

মন্তব্য