আ.লীগে খারাপ লোকদের দরকার নেই: কাদের

প্রজন্ম ডেস্ক

ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগে বিতর্কিত ও খারাপ লোকদের দরকার নেই বলে মন্তব্য করেছেন দলটির সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। কোনো শাখায় যেন বিতর্কিত ব্যক্তিরা স্থান না পায় সে ব্যাপারে সজাগ থাকতে নেতাকর্মীদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।

রবিবার সকালে বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে দলের একটি অনুষ্ঠানে বক্তব্য দিচ্ছিলেন ওবায়দুল কাদের। এদিন সিরাজগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের নেতাদের সঙ্গে কেন্দ্রীয় নেতাদের এক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডীর সদস্য মোহাম্মদ নাসিম।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘দলীয় প্রধানের শুদ্ধি অভিযানের প্রেক্ষাপটে কোনো শাখায় বিতর্কিত ও খারাপ ব্যক্তিরা থাকলে তাদের বাদ দিতে হবে। আমাদের দল ভারী করার দরকার নেই। দলে যারা বিতর্কিত ও খারাপ ব্যক্তি আছে তাদের সব কমিটি থেকে বাদ দিতে হবে।’

সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘আওয়ামী লীগ অনেক বড় দল। দলের ভেতরে নেতৃত্বের জন্য প্রতিযোগিতা থাকবেই। কিন্তু নেত্রীর (শেখ হাসিনার) আহ্বানে সাড়া দিয়ে, তার প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে আমরা দলের মধ্যে যদি কোনো সমস্যা থাকে তা সমাধান করবো।’

‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে শুদ্ধি অভিযানের সঙ্গে অসামঞ্জস্যপূর্ণ বিতর্কিত ব্যক্তিদের দল থেকে বাদ দিতে হবে। দল করতে হলে নিয়ম মানতেই হবে। নিয়মের বাইরে গেলে সে যেই হোক, তাকে ক্ষমা করা হবে না। নেত্রীর নির্দেশ মতো সবাইকে চলতে হবে।’

ভারতে বাবরি মসজিদ মামলার রায় প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘বাবরি মসজিদের ব্যাপারে আমাদের স্পষ্ট বক্তব্য হলো, এটা ভারতের উচ্চ আদালতের রায়। এটা তাদের দেশের অভ্যন্তলীণ বিষয়। কোনো দেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে নাক গলানোর প্রয়োজন আমাদের আছে বলে আমরা মনে করি না।’

‘ঘূর্ণিঝড় মোকাবেলায় সরকার ব্যর্থ’ বিএনপি নেতাদের এমন অভিযোগের জবাবে তিনি বলেন, ‘ঘূর্ণিঝড় আঘাতই করলো না, আমাদের এই ভূখণ্ডে আসার আগে দুর্বল হয়ে গেছে, এটা মিডিয়ার খবর। সারাদেশে কোথাও কোনো ক্ষয়ক্ষতির খবর আমরা পাইনি। জানমালের কোনো ক্ষতির খবর আসেনি। অথচ এর মধ্যেই মির্জা ফখরুল বলে দিয়েছেন সরকার ব্যর্থ। এর আগেও বাজেট ঘোষণার আগে তারা বলেছিল এটা গরিব মারা বাজেট।’

সভায় আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক, সাংগঠনিক সম্পাদক ও নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক ডা. রোকেয়া সুলতানা, উপ-দপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া, কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য নুরুল ইসলাম ঠান্ডু, সিরাজগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল লতিফ বিশ্বাস, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক হাবিবে মিল্লাতসহ জেলা আওয়ামী লীগের নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

মন্তব্য