আমদানি নির্ভরতা কমাতে দেশে প্রথমবার পেঁয়াজ গুদাম

প্রজন্ম ডেস্ক

 চলতি বছরের মাঝামাঝি থেকে হঠাৎই অস্থির পেঁয়াজের বাজার। পাইকারি ও খুচরা বাজারে সমানতালে বেড়েছে দাম। রাজধানীর বিভিন্ন খুচরা বাজারে প্রতি কেজি পেঁয়াজ ১৩০ থেকে ১৪৫ টাকায় বিক্রি হয়েছে। এর মূল্য নিয়ন্ত্রণে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়, কৃষি বিপণন অধিদপ্তরসহ মাঠ প্রশাসনের কর্মকর্তারা হিমশিম খাচ্ছেন প্রতিনিয়ত। দেশি পেঁয়াজ সংরক্ষণের ব্যর্থতা ও ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানি বন্ধ হওয়াতেই মূলত দাম চড়া।

দেশে তেল, ডাল, গম ও আলুর জন্য গুদাম থাকলেও পেঁয়াজ সংরক্ষণের কোনো ব্যবস্থা নেই। ফলে, আপৎকালীন সময়ে পেঁয়াজ নিয়ে বিপাকে পড়ে সরকার। ভারতসহ অন্য দেশ থেকে আমদানিনির্ভরতা কমাতে সারাদেশের কয়েকটি স্থানে প্রথমবারের মতো আধুনিক পেঁয়াজ গুদাম নির্মাণ করতে যাচ্ছে রাষ্ট্রায়ত্ত বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশ (টিসিবি)।

টিসিবি সূত্র জানায়, দেশে পেঁয়াজের গড় চাহিদা ২৪ থেকে ২৫ লাখ মেট্রিক টন, উৎপাদন হয় প্রায় ২৪ লাখ ৩০ হাজার টন। চাহিদার তুলনায় উৎপাদন ঘাটতি থাকে বলে আমদানির মাধ্যমে তা পূরণ করা হয়। চলতি বছর পেঁয়াজ সংরক্ষণ ব্যাহত হয়েছে। শুরুতে পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছে বেশ কম দামে। অনেক পেঁয়াজ নষ্টও হয়েছে। ফলে, সব মিলিয়ে প্রায় ১০ লাখ টন ঘাটতি দেখা দেয়। সাধারণত ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানি করে এই ঘাটতি পূরণ করা হয়। এবার, আমদানিনির্ভরতা কমাতে দেশে নির্মিত হচ্ছে পেঁয়াজ গুদাম।

জানা যায়, দেশে প্রয়োজন অনুযায়ী একাধিক গুদাম নির্মিত হবে। পাবনা, ফরিদপুর, রাজবাড়ী, মানিকগঞ্জ, কুষ্টিয়া, রাজশাহী, ঝিনাইদহ, মাগুরা, মেহেরপুর, মাদারীপুর, শরিয়তপুর, গোপালগঞ্জ, নারায়ণগঞ্জ, দিনাজপুর ও রংপুরে অধিক পরিমাণে পেঁয়াজ উৎপাদন হয়। এর পাইকারি বড় মোকাম বসে রাজবাড়ী, ফরিদপুর, দিনাজপুর ও পাবনায়। প্রয়োজন অনুযায়ী এসব স্থানে পেঁয়াজ গুদাম নির্মাণ করা হবে। এছাড়া, ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানির প্রধান দুই রুট যশোরের বেনাপোল ও দিনাজপুরের হিলি স্থলবন্দরেও আধুনিক গুদাম নির্মিত হবে। কোনো কারণে দাম বেড়ে গেলে এসব গুদাম থেকে ন্যায্যমূল্যে পেঁয়াজ বিক্রি করবে টিসিবি।

কৃষকরা সাধারণত পেঁয়াজ বাছাই ও গ্রেডিংয়ের পর বাঁশের মাচা, ঘরের সিলিং, প্লাস্টিক বা বাঁশের র‌্যাক অথবা ঘরের পাকা মেঝেতে শুষ্ক ও বায়ু চলাচলযুক্ত স্থানে সংরক্ষণ করেন। সারাদেশে কয়েকটি আধুনিক শীতাতপনিয়ন্ত্রিত (এসি) গুদাম নির্মাণের ফলে এভাবে আর পেঁয়াজ সংরক্ষণ করতে হবে না। এসব গুদামে তাপমাত্রা হবে ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। পেঁয়াজ গুদাম নির্মাণে আলাদা প্রকল্প তৈরি শুরু করেছে টিসিবি। এধরনের প্রকল্প বাংলাদেশে এটাই প্রথম। তাই বিভিন্ন দেশ থেকে ধারণা নেওয়া হচ্ছে। তবে, এখনো গুদামের সংখ্যা, নির্মাণের স্থান ও প্রকল্প ব্যয় চূড়ান্ত হয়নি। সব কাজ শুরু হয়েছে মূলত পেঁয়াজের দাম বৃদ্ধি পাওয়ার পর থেকে। টিসিবি মনে করে, এসি গুদাম নির্মিত হলে পেঁয়াজ নিয়ে আর বিপাকে পড়বে না সরকার।
 
এ প্রসঙ্গে টিসিবি সচিব এনামুল হক বাংলানিউজকে বলেন, সারাদেশে আলু সংরক্ষণে গুদাম রয়েছে, অথচ পেঁয়াজের জন্য নেই। চলতি বছরে পেঁয়াজের দাম আকাশচুম্বী। ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানি বন্ধ হওয়ায় এমন অবস্থা হয়েছে। এ অবস্থা থেকে উত্তোরণে দেশে প্রথমবারের মতো এসি পেঁয়াজ গুদাম নির্মাণ করা হবে। কয়টি গুদাম কোথায় কোথায় নির্মাণ করা যায় সে বিষয়ে আমরা কাজ শুরু করেছি। এখন প্রকল্প প্রস্তুতের কাজ চলছে।

মন্তব্য