৪৬৫ কোটি টাকায় ৭ ক্রয় প্রস্তাব অনুমোদন

প্রজন্ম ডেস্ক  

চট্টগ্রামের সরকারি আবাসন সমস্যা সমাধানে পৃথক দুটি প্রকল্পে ৭২টি পরিত্যক্ত বাড়িতে বহুতল ভবন নির্মাণের দুটি প্রস্তাবসহ সাতটি ক্রয় প্রস্তাব অনুমোদন দিয়েছে সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি। এজন্য মোট ব্যয় হবে ৪৬৫ কোটি ৫২ লাখ টাকা।

বুধবার সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির চেয়ারম্যান এবং অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বিদেশে থাকায় মন্ত্রিসভার সিনিয়র মন্ত্রী ও কৃষিমন্ত্রী আবদুর রাজ্জাক বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন।

এসময় কমিটির সদস্য, মন্ত্রিপরিষদ বিভাগর সচিব সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের সচিব এবং ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। বৈঠক শেষে অনুমোদিত প্রকল্পগুলোর বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব নাসিমা বেগম।

তিনি বলেন, ‘গণর্পূত অধিদপ্তর কর্তৃক বাস্তবায়নাধীন চট্টগ্রামের ৩৬টি পরিত‌্যক্ত বাড়িতে সরকারি কর্মকর্তা/কর্মচারিদের জন্য আবাসিক ফ্ল্যাট নির্মাণ’ র্শীষক প্রকল্পের আওতায় চট্টগ্রামের বিভিন্ন জায়গায় ১০তলা আবাসিক ভবন নির্মাণের একটি প্রস্তাব অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এতে ব্যয় হবে ১০১ কোটি ৬১ লাখ ৪৬ হাজার টাকা। প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করবে মেসার্স নূরানী কন্সট্রাকশন লিমিটেড নামের একটি ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান।

তিনি বলেন, ‘একই প্রকল্পের আওতায় ৩৬টি পরিত্যক্ত বাড়িতে আবাসিক ফ্ল্যাট নির্মাণ শীর্ষক প্রকল্পের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। প্রকল্পের একটি প্যাকেজের আওতায় পাঁচটি পরিত‌্যক্ত প্লটে বিভিন্ন আয়তনের ফ্ল্যাট নির্মাণসহ অন্যান্য আনুষঙ্গিক কাজের জন্য উন্মুক্ত পদ্ধতিতে দরপত্র আহ্বান করলে পাঁচটি দরপত্র বিক্রি হয়।

তবে দরপ্রস্তাব পাওয়া যায় একটি। টিইসি কর্তৃক সুপারিশকৃত রেসপনসিভ একমাত্র দরদাতা প্রতিষ্ঠান মেসার্স জামাল অ্যান্ড কোম্পানি লিমিটেডের নাম প্রস্তাব করে। কমিটি প্রস্তাটিতে অনুমোদন দিয়েছে। প্রকল্পে ব্যয় হবে  ১০৬ কোটি ২০ লাখ ৭০ হাজার টাকা।’

অতিরিক্ত সচিব বলেন, ‘বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের (বিউবো) আওতাধীন বিতরণ অঞ্চলের অন্তর্ভূক্ত চারটি শহরে আন্ডারগ্রাউন্ড কেবল ডিস্ট্রিবিউশন নেটওয়ার্ক সিস্টেম স্থাপন কাজের সম্ভাব্যতা যাচাই প্রাক্কলন ও ডিপিআর প্রস্তুতকরণের জন্য পরামর্শক নিয়োগের ক্রয় প্রস্তাব অনুমোদন দিয়েছে। প্রকল্পে ব্যয় হবে ২৫ কোটি ৩১ লাখ টাকা। অষ্ট্রেলিয়ার নলেজ ইন্টারন্যাশনাল নামের একটি পরামর্শক প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে পরামর্শক সেবা নেওয়া হবে।’

তিনি বলেন, ‘স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের নিয়ন্ত্রণাধীন ১৩ হাজার ৭২৪টি কমিউিনিটি ক্লিনিকে ওষুধ সরবরাহের জন্য কমিউিনিটি বেইজড হেলথ (সিবিএইচসি) অপারেশনাল প্ল্যানে ২০১৯-২০২০ অর্থবছরে জিওবি (উন্নয়ন) খাতের আওতায় সরকারি প্রতিষ্ঠান অ্যাসেনশিয়াল ড্রাগস কোম্পানি লিমিটেড থেকে সরাসরি ক্রয় পদ্ধতিতে ২৭ প্রকার ওষুধ ক্রয়ের প্রস্তাবে অনুমোদন দিয়েছে কমিটি। সরকারি প্রতিষ্ঠান অ্যাসেনশিয়াল ড্রাগস এসব ওষুধ সরবরাহ করবে। এ জন্য ব্যয় হবে ১৪৯ কোটি ৯৯ লাখ টাকা।’

পর্যটন মহাপরিকল্পনা প্রণয়নের লক্ষ্যে আন্তর্জাতিক পর্যটন পরামর্শক প্রতিষ্ঠান নিয়োগের লক্ষ্যে ক্রয় প্রস্তাব বৈঠকে অনুমোদন দেওয়া হয়েছে বলে জানান নাসিমা বেগম। প্রকল্পটিতে ব্যয় হবে দুই কোটি ৬৬ লাখ টাকা। ভারতের আইপিইি গ্লোবাল লিমিটেডের সঙ্গে ফ্রান্স ও বাংলাদেশের একটি প্রতিষ্ঠান যৌথভাবে পরামর্শক সেবা দেবে।

এছাড়াও টেবিলে দুটি প্রস্তাব উপস্থাপন করা হয়। সংযুক্ত আরব আমিরাত থেকে দুটি লটে ২৫ হাজার টন ইউরিয়া সার আমাদানির একটি প্রস্তাব অনুমোদন দেয়া হয়েছে। প্রতি টন সারের দাম ২৪৪ দশমিক ২৫ ডলার হিসেবে বাংলাদেশি টাকায় ব্যয় হবে ৫১ কোটি ৭৫ লাখ টাকা।

মন্তব্য