ভারতে রোগীর শরীরে মিলল সাড়ে ৭ কেজি ওজনের কিডনি

প্রজন্ম ডেস্ক

ভারতের চিকিৎসকরা এক রোগীর দেহ থেকে ৭ কেজি ৪০০ গ্রাম ওজনের একটি কিডনি অপসারণ করেছেন।

কিডনিটির এ ওজন দুটি সদ্যজাত শিশুর প্রায় সমান,

মানবদেহে যে দুটি কিডনি থাকে তাদের ওজন সাধারণত ১২০ থেকে ১৫০ গ্রামের মধ্যে হয়ে থাকে।

যে রোগীর দেহ থেকে প্রায় সাড়ে ৭ কেজি ওজনের এ কিডনিটি অপসারণ করা হয়েছে, তিনি অটোসোমাল ডমিনেন্ট পলিসিস্টিক কিডনি রোগে ভুগছিলেন বলে চিকিৎসকরা জানিয়েছেন। এ রোগে কিডনিজুড়ে অতিরিক্ত কোষের অস্তিত্ব দেখা যায়।

এ ধরনের রোগে আক্রান্ত ব্যক্তির কিডনি সাধারণত বড়ই হয়, বলেছেন ৭ কেজি ৪০০ গ্রামের কিডনিটি অপসারণে যুক্ত এক চিকিৎসক।

দিল্লির গঙ্গা রাম হাসপাতালের ড. শচিন কাঠুরিয়া বলছেন, কিডনি যদি সামান্যও সক্রিয় থাকে তাহলেও তারা শরীরের জন্য মহাগুরুত্বপূর্ণ এ অঙ্গটিকে সচল রাখার চেষ্টা করেন; সংক্রমণ কিংবা অভ্যন্তরীণ রক্তক্ষরণ শুরু না হওয়া পর্যন্ত বেশি ওজনের কিডনি অপসারণের কথা ভাবাও হয় না।

“রোগীর যে সংক্রমণ হয়েছিল, তা এন্টিবায়োটিকে সারছিল না। বিশালাকৃতির এ কিডনি এমনকি তার নিঃশ্বাস-প্রশ্বাসেও সমস্যা সৃষ্টি করছিল। তাই এটি অপসারণ করা ছাড়া আর উপায় ছিল না,” বলেছেন তিনি।

অপারেশনের আগেই চিকিৎসকরা রোগীর কিডনি স্বাভাবিকের চেয়ে বড় হবে বলে ধরে নিয়েছিলেন, কিন্তু ‘এত বড় যে হবে, তা ভাবতে পারেননি’, মন্তব্য শচিনের।

“তার অন্য কিডনিটি আরও বড়,” বলেছেন এ চিকিৎসক।

ইউরোলজি জার্নালে যুক্তরাষ্ট্রের এক ব্যক্তির ৯ কেজি ওজনের কিডনি এবং নেদারল্যান্ডসের একজনের ৮ কেজি ৭০০ গ্রাম ওজনের কিডনির খোঁজ দেয়া হয়েছে বলেজানিয়েছে।

ভারতে অপসারিত এ কিডনির বিষয়ে গিনেস বুক কর্তৃপক্ষকে জানানো হবে কিনা চিকিৎসকরা সে বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেননি বলেও শচিন জানিয়েছেন।

“বিবেচনা করা হচ্ছে,” বলেছেন তিনি। 

মন্তব্য