সম্মেলনে বসেছে মহানগর আওয়ামী লীগ

প্রজন্ম ডেস্ক

উপমহাদেশের অন্যতম প্রাচীন রাজনৈতিক দল ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের ঢাকা মহানগর শাখার সম্মেলন উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এই সম্মেলন থেকেই আগামী তিন বছরের জন্য নগর আওয়ামী লীগের দায়িত্ব পাবেন নব নির্বাচিতরা।

শনিবার বেলা ১১টায় রাজধানীর ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ ও উত্তর আওয়ামী লীগের সম্মেলন উদ্বোধন করেন আওয়ামী লীগ সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

পরে জাতীয় সঙ্গীতের সঙ্গে জাতীয় পতাকা ও আওয়ামী লীগের দলীয় পতাকা উত্তোলনের মাধ্যমে সম্মেলনের আনুষ্ঠানিকতা শুরু করা হয়।

এর আগে সম্মেলনস্থলে পৌঁছালে স্লোগানে স্লোগানে শেখ হাসিনাকে শুভেচ্ছা জানান নেতাকর্মীরা। মঞ্চে নেতাকর্মীদের উদ্দেশে হাত নেড়ে শুভেচ্ছার জবাব দেন আওয়ামী লীগ সভাপতি।

বিকালে সম্মেলনের দ্বিতীয় অধিবেশনে ঢাকা মহানগরের নতুন নেতার নাম ঘোষণা করা হবে। যেখানে উপস্থিত থাকবেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরসহ জ্যেষ্ঠ নেতারাও।

আগামী বছর জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম শত বার্ষিকী ও ‘মুজিব বর্ষ’ উদযাপনকে সামনে রেখে দলের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ দুটি ইউনিট ঢাকা মহানগর উত্তর-দক্ষিণকে ঢেলে সাজাতে চাইছে দলটির নীতি নির্ধারকরা। সেজন্য নেতৃত্ব বাছাইয়ের প্রক্রিয়ায় স্বচ্ছ ভাবমূর্তি আর পরিচ্ছন্ন নেতৃত্ব খুঁজছে আওয়ামী লীগ।

ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগকে উত্তর-দক্ষিণ দুটি ইউনিটে ভাগ করার আগে সর্বশেষ সম্মেলন হয় ২০১২ সালের ২৭ ডিসেম্বর। কিন্তু নানা জটিলতায় আটকে যায় কমিটি গঠন প্রক্রিয়া। এর তিন বছর পর ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগকে দু’ভাগে বিভক্ত করা হয়।

২০১৬ সালের ১০ এপ্রিল একেএম রহমতুল্লাহকে সভাপতি ও সাদেক খানকে সাধারণ সম্পাদক করে মহানগর উত্তর এবং আবুল হাসনাতকে সভাপতি ও শাহে আলম মুরাদকে সাধারণ সম্পাদক করে মহানগর দক্ষিণ কমিটি ঘোষণা করা হয়।

মন্তব্য