বিমানের সাবেক পরিচালক ও ব্যবস্থাপক গ্রেপ্তার

প্রজন্ম ডেস্ক

কার্গো হ্যান্ডলিংয়ের অর্থ আদায় না করে সরকারের ১১৮ কোটি টাকা ক্ষতিসাধনের মামলায় বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের সেলস অ‌্যান্ড মার্কেটিং বিভাগের সাবেক পরিচালক আলী আহসান বাবু ও ব‌্যবস্থাপক ইফতেখার হোসেন চৌধুরীকে গ্রেপ্তার করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

মঙ্গলবার দুপুরে সেগুনবাগিচা এলাকা থেকে তাদেরকে গ্রেপ্তার করে দুদকের উপ-পরিচালক নাসির উদ্দিনের নেতৃত্বাধীন একটি দল। দুদকের জনসংযোগ দপ্তর বিষয়টি নিশ্চিত করেছে।

এর আগে সকালে আত্মসাতের অভিযোগে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের সাবেক পরিচালকসহ ১৬ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে দুদক। দুদকের সমন্বিত জেলা কার্যালয়-১ সংস্থাটির উপ-পরিচালক নাসির উদ্দিন বাদী হয়ে মামলাটি দায়ের করেন।

এজাহারভুক্ত আসামিরা হলেন- বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের সাবেক পরিচালক (মার্কেটিং অ‌্যান্ড সেলস) মোহাম্মদ আলী আহসান, ভারপ্রাপ্ত মহাব্যবস্থাপক (কার্গো) মো. আরিফ উল্লাহ, সহকারী ব্যবস্থাপক (বাণিজ্যিক) মো. ফজলুল হক, সাবেক ব্যবস্থাপক (রপ্তানী) ইফতেখার হোসেন চৌধুরী, এ. কে. এম. মঞ্জুরুল হক (আমদানী), বিমান বাংলাদেশের কান্ট্রি ম্যানেজার (সৌদি আরব)

মো. শহিদুল ইসলাম, রিজিওনাল ম্যানেজার (রিয়াদ) আরব আমিনূল হক ভুঁইয়া, সাবেক সহকারী ব্যবস্থাপক (বাণিজ্যিক) মো. লুতফে জামাল, মো. শাহজাহান মোশাররফ হোসেন তালুকদার, রাজীব হাসান, নাসির উদ্দিন তালুকদার, অনুপ কুমার বড়ুয়া, কে. এন. আলম, সৈয়দ আহমেদ পাটওয়ারী ও মনির আহমেদ মজুমদার।

অনুসন্ধান প্রতিবেদন সূত্রে জানা যায়, আসামিরা বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের কার্গো শাখায় দায়িত্ব পালনকালে পারষ্পরিক যোগসাজশে অবৈধ সুবিধা নিয়ে কার্গো ও মেইল হ্যান্ডলিং চার্জের ১১৮ কোটি চার লাখ ১৭ হাজার ৪৮ টাকা আদায় না করে সরকারের আর্থিক ক্ষতি করেছেন। ২০১২ সালের জুলাই থেকে ২০১৭ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত সময়ে অর্থ আত্মসাতের এ ঘটনা ঘটে।

আসামিদের বিরুদ্ধে দণ্ডবিধির ৪০৯/৪১৮/১০৯ এবং দুর্নীতি প্রতিরোধ আইন-১৯৪৭ এর ৫(২) ধারায় অভিযোগ আনা হয়েছে।

মন্তব্য