বাতিল হচ্ছে স্মার্টকার্ড ড্রাইভিং লাইসেন্সের দরপত্র

প্রজন্ম ডেস্ক

দরপত্রের শর্তের সঙ্গে দাখিল করা কাগজপত্রের সামঞ্জস্যহীনতার অভিযোগে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআরটিএ) ডিজিটাল স্মার্টকার্ড ড্রাইভিং লাইসেন্স সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানের দরপত্র বাতিল হচ্ছে।

একই সঙ্গে সংস্থাটি এ বিষয়ে পুনঃদরপত্রের অনুমোদনের আবেদন জানিয়েছে সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির কাছে।

জানা গেছে, বিআরটিএ একটি দরপত্রে অংশ নিয়ে ফ্রান্সের সেলফ স্মার্টকার্ডস অ্যান্ড সলিউশনস নামের একটি প্রতিষ্ঠান সর্বনিম্ন দরদাতা হয়েছিল। কিন্তু প্রতিষ্ঠানটির দলিলপত্রে মিথ্যা তথ্য রয়েছে বলে অভিযোগ উঠে। এ বিষয়ে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগ। কমিটির তদন্তে অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় দরপত্রটি বাতিলসহ পুনঃদরপত্র আহ্বানের অনুমোদন চাওয়া হচ্ছে।

সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের সার-সংক্ষেপে বলা হয়েছে, বিআরটিএ প্রদত্ত সেবাসমূহের মধ্যে স্মার্টকার্ড ড্রাইভিং লাইসেন্স ইস্যু অন্যতম। ইতিপূর্বে ৫ বছর মেয়াদে অনুন্নয়ন/পরিচালনা বাজেটের অধীনে ১৫ লাখ ডিজিটাল স্মার্টকার্ড ড্রাইভিং লাইসেন্স প্রতিটি ৪৭২ টাকা ৬০ পয়সা দরে সরবরাহের জন্য বিআরটিএ এবং টাইগার আইটি বাংলাদেশ লিমিটেডের মধ্যে ২০১৬ সালের ২৩ জুন একটি চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়।

চুক্তির সর্বমোট মূল্য ছিল ৭৪ কোটি ৯৮ লাখ ৫০ হাজার টাকা। ২০২১ সালের ২২ জুন উক্ত চুক্তি শেষ হওয়ার কথা। তবে চুক্তি সম্পাদনের পর থেকে চলতি বছরের অক্টোবর পর্যন্ত ১৪ লাখ ৩৪ হাজার ১৮৪টি পলিকার্বনেট ড্রাইভিং কার্ড উক্ত প্রতিষ্ঠান সরবরাহ করেছে। চুক্তির ১৫ লাখ ড্রাইভিং লাইসেন্স স্মার্টকার্ডের সরবরাহ নির্দিষ্ট সময়ের ১৯ মাস আগেই সম্পন্ন হবে।  

সূত্র জানায়, আইনি কার্যক্রম জোরদার, বিআরটিএ সহ জেলা প্রশাসনের ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা, বিভিন্ন রাইড শেয়ারিং কোম্পানির সার্ভিস পরিচালনা, নতুন আইন পাশ হওয়া এবং গত বছর থেকে অধিকসংখ্যক মোটরসাইক‌্যাল রেজিষ্ট্রেশন হওয়ায় বৈধ ড্রাইভিং লাইসেন্স সংগ্রহ ব্যাপকহারে বেড়েছে। ফলে বাস্তবতার নিরিখে গড়ে প্রতি বছর তিন লাখ স্মার্ট কার্ডের বেশি হারে স্মার্ট প্রিন্ট করতে হচ্ছে।

এ অবস্থায় বর্তমান সরবরাহকারীর সঙ্গে সম্পাদিত চুক্তির মেয়াদ শেষ হওয়ার আগেই নতুন সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান নির্বাচন ও ড্রাইভিং লাইসেন্স স্মার্টকার্ড সংগ্রহ করার বিষয়টি অনুমোদিত হয়। পরে ৫ বছর মেয়াদে ৩৫ লাখ ড্রাইভিং লাইসেন্স স্মার্টকার্ড সরবরাহের জন্য দরপত্র আহ্বান করা হয়। এতে প্রাক্কলিত ব্যয় ধরা হয় ১৫৯ কোটি ২৮ লাখ ৪১ হাজার টাকা।

মোট ৩৭টি প্রতিষ্ঠান দরপত্র দলিল ক্রয় করলেও চূড়ান্তভাবে দরপত্রে মোট তিনটি সরবারহকারী প্রতিষ্ঠান অংশ নেয়। এর মধ্যে ফ্রান্সভিত্তিক সেলফ স্মার্টকার্ডস অ্যান্ড সলিউশনস রেসপন্সিভ হয়। অন্য দুটি প্রতিষ্ঠান ইন্ডিয়ার মাদ্রাজ সিকিউরিটি প্রিন্টার্স প্রাইভেট লিমিটেড এবং মালয়েশিয়ার প্রিসটাকান ন্যাশনাল মালায়েশিয়া বারহাডের দরপত্র নন-রেসপন্সিভ হয়।

দরপত্র নিয়ে অভিযোগ পাওয়া যায়, রেসপন্সিভ প্রতিষ্ঠান সেলফ স্মার্ট কার্ডস অ্যান্ড সলিউশনস দরপত্রে তাদের মানদণ্ডের যে সনদ দাখিল করে তা ঠিক নয়। দরপত্রে ওয়ারেন্টি ১০ বছর উল্লেখ থাকলেও প্রস্তাবে ৫ বছরের ওয়ারেন্টি উল্লেখ রয়েছে। একই সঙ্গে অথরাইজড সিগনেটরির পক্ষে কোন প্রমাণ নেই।

এসব অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে একজন অতিরিক্ত সচিবকে প্রধান করে তিন সদস্যের একটি কমিটি গঠন করা হয়। গঠিত কমিটি তদন্ত করে অভিযোগের সত্যতা পায়। এসব কারণ দেখিয়ে বিআরটিএ ক্রয় প্রস্তাবটি বাতিল করে পুনঃদরপত্রের অনুমোদন চাওয়া হচ্ছে। এ সংক্রান্ত একটি প্রস্তাব বুধবার সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠকে উপস্থাপন করা হবে বলে সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগ সূত্রে জানা গেছে।

মন্তব্য