চলতি মাসেই তিনটি শৈত্যপ্রবাহ

প্রজন্ম ডেস্ক

 জানুয়ারিতে সারা দেশে তিনটি শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যেতে পারে। বৃহস্পতিবার আবহাওয়া অফিস এমন পূর্বাভাসই দিয়েছে।

ডিসেম্বরের মাঝামাঝি শুরু হয়েছিল শৈত্যপ্রবাহ। সারা দেশের মানুষকে কাঁপিয়ে ছেড়েছে এই শীত। এখন অবশ্য শীতের তীব্রতা নেই। উল্টো বৃষ্টি ঝরেছে দেশের দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্ব অঞ্চলে।

তবে ৬ জানুয়ারি পর একটি এবং এ মাসের শেষ দিকে আরেকটি তীব্র শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যাবে বলে জানিয়েছেন আবহাওয়া অধিদফতরের পরিচালক সামছুদ্দিন আহমেদ।

বৃহস্পতিবার তিনি বলেন, আর জানুয়ারি মাসের মাঝামাঝিতে একটি মাঝারি শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যেতে পারে।

সামছুদ্দিন আহমেদ আরও জানান, আগামী ৬ জানুয়ারি থেকে দেশের বিভিন্ন স্থানে তাপমাত্রা কমে যাবে। জানুয়ারি মাসে দুটি তীব্র এবং একটি মাঝারি শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা আছে। সে সময় কনকনে শীত অনুভূত হবে।

৩, ৪ ও ৫ জানুয়ারি দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে বৃষ্টি হতে পারে বলেও জানিয়েছেন তিনি। সামছুদ্দিন বলেন, এরপর তাপমাত্রা নামতে শুরু করবে, গ্রামাঞ্চলে শীতের তীব্রতা বেশি অনুভূত হবে।

এদিকে শীত ও শৈত্যপ্রবাহ নিয়ে সরকারের প্রস্তুতি তুলে ধরতে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী এনামুর রহমান বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে সংবাদ সম্মেলনে আসেন।

শৈত্যপ্রবাহ আসছে, সরকারের প্রস্তুতির বিষয়ে জানতে চাইলে প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘কেউ যাতে শীতে কষ্ট না পায় সেজন্য পোশাক ও খাদ্য বিতরণের কর্মসূচি হাতে নিয়েছি। দরিদ্র ও অতিদরিদ্র মানুষরা শীতে বেশি কষ্ট পায়, তাদেরকে বিতরণের জন্য এগুলো বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। বিতরণ অনেক জায়গায় শুরু হয়েছে। বিতরণ কাজ চলতে থাকবে যাতে একটি মানুষও শীতে কষ্ট না পায়। এই সতর্কতাটা আমরা নিয়েছি।’

তিনি বলেন, ‘এ ছাড়া আমাদের অর্থ, কম্বল ও শুকনো খাবারের মজুদ আছে, কোথাও যদি জরুরি প্রয়োজন হয় সেটা মেটানোর সক্ষমতাও আমাদের আছে।’

এনামুর রহমান বলেন, ‘গত মাসের মাঝামাঝি থেকে সারা দেশে তীব্র শীত জেকে বসেছে। অক্টোবরে শীতের পূর্বাভাস পাওয়ার পর প্রত্যেক জেলায় শীতবস্ত্র পাঠিয়ে দিয়েছি। জেলা এবং উপজেলা প্রশাসনের চাহিদা মোতাবেক শীতবস্ত্র সরবরাহ করেছি।’

মন্তব্য