‘সোলাইমানিকে কয়েক বছর আগেই হত্যা করা উচিৎ ছিল’- ট্রাম্প

প্রজন্ম ডেস্ক

ইরানের এলিট কুদস বাহিনীর প্রধান জেনারেল কাসেম সোলাইমানিকে কয়েক বছর আগেই হত্যা করা উচিৎ ছিল। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এক টুইট বার্তায় এ মন্তব্য করেছেন।

সোলাইমানিকে হত্যা করার পরে ট্রাম্প শুধু টুইটারে আমেরিকার পতাকা পোস্ট করেন। তবে পরবর্তীতে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প টুইটারে আরও তিনটি বার্তা পোস্ট করেন।

টুইট বার্তায় ট্রাম্প লিখেছেন, জেনারেল কাসেম সোলেইমানি বিগত সময় ধরে হাজারো মার্কিনীকে মেরে ফেলেছেন বা গুরুতর আহত করেছেন। এবং আরও বহু মার্কিনীকে হত্যার ছক কষছিলেন… কিন্তু তিনি ধরা পড়লেন। তিনি প্রত্যক্ষ কিংবা পরোক্ষভাবে লাখ লাখ মানুষের নিহত হওয়ার কারণ।

অন্য আরেকটি টুইট বার্তায় ট্রাম্প লিখেছেন, জেনারেল কাসেম সোলেইমানিকে কয়েক বছর আগেই হত্যা করা উচিৎ ছিল।

এছাড়া ট্রাম্প আরেক টুইটে লিখেন, ইরান কখনই যুদ্ধে জিতেনি কিন্তু কোন আলোচনা হারেনি!

এর আগে শুক্রবার (৩ জানুয়ারি) ভোরে ইরাকের রাজধানী বাগদাদের আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের কাছে দু’টি গাড়িতে হেলিকপ্টার থেকে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালায় মার্কিন সেনারা। এতে ইরানের কুদস ব্রিগেডের কমান্ডার মেজর জেনারেল কাসেম সোলাইমানি ও ইরাকের হাশদ আশ-শাবির বাহিনীর সেকেন্ড-ইন-কমান্ড আবু মাহদি আল-মুহান্দিস নিহত হন।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের নির্দেশেই ইরানের বিপ্লবী এলিট কুদস বাহিনীর প্রধান জেনারেল কাসেম সোলাইমানির গাড়ি বহরে বিমান হামলা করা হয়েছে বলে জানিয়েছে মার্কিন প্রতিরক্ষা দপ্তর ‘পেন্টাগন’।

পেন্টাগন এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, প্রেসিডেন্টের (ডোনাল্ড ট্রাম্প) নির্দেশে মার্কিন সেনাবাহিনী আইআরজিসির কুদস ব্রিগেডের কমান্ডার কাসেম সোলাইমানিকে হত্যা করা হয়েছে।

বিবৃতিতে আরো বলা হয়, ভবিষ্যতে ইরানকে যেকোনো ধরনের হামলার পরিকল্পনা থেকে বিরত রাখতেই এই হামলা চালানো হয়েছে বলে জানিয়েছে পেন্টাগন। একই সঙ্গে বিশ্বের যেকোনো প্রান্তে অবস্থান করা মার্কিন নাগরিকদের রক্ষা করতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

উল্লেখ্য গত বছরের মার্চে জেনারেল সোলাইমানিকে ইরানের সর্বোচ্চ বীরের পদক পরিয়ে দিয়েছিলেন ইরানের সর্বোচ্চ নেতা আয়াতুল্লা খোমেনি।

মন্তব্য