ঢাবি অধ্যাপককে ছাত্রলীগ নেত্রীদের মারধর

প্রজন্ম রিপোর্ট

 ছাত্রলীগ নেত্রীদের হাতে মারধর ও লাঞ্ছনার শিকার হয়েছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নৃবিজ্ঞান বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. জোবাইদা নাসরীন। এ ঘটনায় সোমবার (০৬ জানুয়ারি) বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য, শিক্ষক সমিতির সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকসহ হলের প্রাধ্যক্ষ বরাবর লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন তিনি।

বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হলে গত রোববার সন্ধ্যায় এ ঘটনা ঘটে। জোবাইদা নাসরীন ওই হলের সহকারী আবাসিক শিক্ষক।

জানা গেছে, ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর শাড়ি বিতরণ নিয়ে রোববার সন্ধ্যায় হল শাখা ছাত্রলীগের দু’পক্ষের সংঘর্ষ হয়। মারামারি থামাতে এগিয়ে যান অধ্যাপক জোবাইদা নাসরীন। ওই সময় তাকেও মারধর ও লাঞ্ছিত করেন ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা।

এ বিষয়ে অধ্যাপক জোবাইদা নাসরীন বলেন, ‘ঘটনাটির সূত্রপাত হয়েছে জানুয়ারির তিন তারিখ রাতে। ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীকে কেন্দ্র করে শাড়ি দেওয়া নেওয়া নিয়ে। ছাত্রলীগের কারেন্ট সেক্রেটারি রওনক এবং ভাইস প্রেসিডেন্ট সালসাবিলের মধ্যে হাতাহাতি হয়। সেই ঘটনা আমাদের প্রভোস্টকে জানানো হয়। ওই সময় আমি অসুস্থ থাকায় আমাদের কিচেন হাউজস্টেট ওখানে যায়। তখন ছাত্রলীগের প্রেসিডেন্ট নিশি বলেন মীমাংসা হয়ে গেছে।’

‘তারপর গত পরশুদিন রোববার (০৫ জানুয়ারি) রাতে হল থেকে আমাকে জানানো হয় হলে দুই পক্ষ মারামারি করছে। আমরা খবর পেয়ে গিয়ে দেখি দুপক্ষের একদফা মারামারি হেয়ে গেছে। তখন ছাত্রলীগের প্রেসিডেন্ট-সেক্রেটারি আমাদের রুম থেকে বের করে দিলেন। বললেন আমরা মিটিং করে মীমাংসা করে নিবো। আমরা বাইরে দেখে বুঝতে পারছিলাম ছাত্রলীগের সঙ্গে যাদের মারামারি হয়েছে তারে দুইটা মেয়েকে তারা মারবে। শিক্ষক হিসেবে তাদের সেভ করা আমাদের দায়িত্ব।

আমরা তখনেই নিচে নামলাম, দেখি একটি মেয়েকে রুম থেকে মারতে মারতে বের করে নিয়ে আসছে। আমি তাকে জড়িয়ে ধরলাম। আমি তখন বললাম, তোমরা কেউ গায়ে হাত দিবানা, গায়ে হাত দিলে শাস্তি দিবো। তখন মেইনগেট বন্ধ করে দিয়ে মেয়েটিকে মারা শুরু করে, সে সময় আমাকেও চুল ধরে মাটিতে ফেলে দেয়। কয়েকজন মিলে আমাকে আক্রমণ করে। কেউ চুলে ধরে, কেউ আমাকে খামচি দেয়।’

ঘটনার সুষ্ঠু বিচার দাবি করে তিনি বলেন, তাদের মারধরের কারণে আমার ঘাড় ফুলে গেছে এবং আমার পায়ে প্রচণ্ড ব্যথা। আমি এখন চিকিৎসাধীন। প্রশাসনের কাছে বিচার দিয়েছি। আমি এ ঘটনার তদন্ত সাপেক্ষে সুষ্ঠু বিচার ও নিরাপত্তা চাই।

এ বিষয়ে ঢাবি প্রক্টর গোলাম রব্বানী বলেন, অধ্যাপক জোবাইদা নাসরিনকে মারধর ও লাঞ্ছনার ঘটনায় তদন্ত কমিটিকে তিনদিনের মধ্যে রিপোর্ট দিতে বলা হয়েছে। এ বিষয়ে ভিসি অবগত আছেন। তিনি এটিকে গুরুত্ব সহকারে দেখার নির্দেশ দিয়েছেন বলে জানান প্রক্টর।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হলে ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর শাড়ি বিতরণ নিয়ে দু’পক্ষে মারামারির ঘটনায় হল সংসদের বহিঃক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক পাপিয়া আক্তার, হল সংসদের সমাজসেবা সম্পাদক ইসরাত জাহান ইতি ও মিলি রাণী আহত হন।

মন্তব্য