দেনার দায়ে গৃহবধূর আত্মহত্যা

উত্তম চক্রবর্তী, ভ্রাম্যমাণ প্রতিনিধি, রাজগঞ্জ ,যশোর

শিলা বৈদ্য (৪০) নামে এক গৃহবধূ গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন। তিনি যশোরের মণিরামপুর উপজেলার কুচলিয়া গ্রামের অরুণ বৈদ্যর স্ত্রী ও দুই মেয়ের মা। খবর পেয়ে মঙ্গলবার থানা পুলিশ লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠিয়েছে।

এই ঘটনায় থানায় অপমৃত্যু মামলা হয়েছে। দেনার দায়ে তিনি আত্মহত্যা করেছেন বলে ধারণা স্বজনদের। নিহতের ভগ্নিপতি পরিতোষ মণ্ডল জানান, অরুণ বৈদ্য ঢাকায় কোচিং সেন্টার পরিচালনা করেন। দুই মেয়ে অনি (১৭) ও তনুকে (৮) নিয়ে বাড়িতে থাকতেন শিলা। কয়েকটা এনজিও থেকে বেশকিছু টাকা ঋণ নেওয়া ছিল শিলার।

সর্বশেষ স্থানীয় একটি এনজিও থেকে দেড় লাখ টাকা ঋণ নেন শিলা। মঙ্গলবার তার কিস্তি শোধের দিন ছিল। এছাড়া গত সোমবার রাতে মেয়েদের সঙ্গে তার ঝগড়া হয়। পরে দুই মেয়েকে আলাদা ঘরে দিয়ে অন্য ঘরে ঘুমিয়ে পড়েন শিলা।

সকালে মায়ের উঠতে দেরি দেখে মেয়েরা ডাকাডাকি করে। কোনো সাড়া না পেয়ে তারা চিৎকার দেয়। চিৎকার শুনে আশপাশের লোকজন এসে দরজা ভেঙে শিলার মৃতদেহ ঝুলতে দেখেন।

  মণিরামপুর থানার সেকেন্ড অফিসার এসআই দেবাশীষ বিশ্বাস বলেন, ৫-৬টি এনজিও থেকে শিলার ঋণ নেওয়া ছিল। এছাড়া তিনি খুব রাগী ছিলেন। রাতে ছোট মেয়ের সঙ্গে তার সামান্য রাগারাগি হয়। তবে কী কারণে তিনি আত্মহত্যা করেছেন তা জানা যায়নি। লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠানো হয়েছে। 

মন্তব্য