অবশেষে ক্ষমা চাইলো ইরান

প্রজন্ম ডেস্ক

 অবশেষে তেহরানের কাছে বিধ্বস্ত হওয়া ইউক্রেন এয়ারলাইন্সের বিমানটি ভূপাতিত করার কথা স্বীকার করেছে ইরান।

শনিবার সকালে দেশটির রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনের (প্রেস টিভি) খবরে বলা হয়েছে, ওয়াশিংটনের সঙ্গে চলমান উত্তেজনার মধ্যে তাদের সেনাবাহিনীর (ইসলামিক রেভ্যুলুশনারি গার্ডস-আইআরজিসি) একটি গুরুত্বপূর্ণ সাইটের কাছাকাছি চলে যাওয়ায় ভুলবশত বিমানটি ভূপাতিত করা হয়।

ঘটনার দায় স্বীকার করে নিহত আরোহীদের পরিবার ও দেশের কাছে ক্ষমাপ্রার্থনা করেছে তেহরান। এ ঘটনায় জড়িতদের বিরুদ্ধে বিচারিক পদক্ষেপ নেওয়ার ঘোষণাও দিয়েছে তারা। প্রথমে অবশ্য বিমান ভূপাতিত করার অভিযোগ অস্বীকার করেছিলো ইরান।

গত ৮ জানুয়ারি (বুধবার) সকালে তেহরানের ইমাম খোমেনি বিমানবন্দর থেকে ইউক্রেনের রাজধানী কিয়েভের উদ্দেশে উড্ডয়নের পরপরই ১৮০ যাত্রীসহ বোয়িং ৭৩৭ বিমানটি বিধ্বস্ত হয়। গত বুধবার মার্কিন সংবাদমাধ্যম নিউজ উইক দাবি করে, তেহরানের কাছে বিধ্বস্ত হওয়া ইউক্রেনগামী বিমানটি ভুল করে ভূপাতিত করেছে ইরান। পরে গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডোও একই দাবি করলেও তা অস্বীকার করে তেহরান।

শনিবার সকালে ইরানের সশস্ত্র বাহিনীর প্রধানকে উদ্ধৃত করে প্রেস টিভির খবরে বলা হয়েছে, বিমানটি একটি স্পর্শকাতর সামরিক স্থাপনার কাছ দিয়ে উড়ছিলো। পরে এক টুইট বার্তায় ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জাভেদ জারিফ জানান, সশস্ত্র বাহিনীর অভ্যন্তরীণ তদন্তের প্রাথমিক অনুসন্ধানে দেখা গেছে বিমানটি আসলে ভূপাতিত করা হয়েছে। তিনি বলেন, মার্কিন হঠকারিতার কারণে সংকটের মুহূর্তে এই ত্রুটি ঘটে। এই ঘটনায় দুঃখ প্রকাশ করে তিনি নিহতদের পরিবার ও দেশগুলোর কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করেন।

এদিকে ইউক্রেনীয় বিমান গুলি করে ভূপাতিত করার জন্য যারা দায়ী, সামরিক আইনে অচিরেই তাদের বিচারের মুখোমুখি করা হবে বলে দাবি করেছে ইরানি সামরিক বাহিনী। এক সংবাদবিজ্ঞপ্তিতে তারা দাবি করেছে, ফের যাতে এমন ভুল না ঘটে, তা নিশ্চিত করতে সশস্ত্র বাহিনীর পর্যায়ে অভিযান প্রক্রিয়ায় মৌলিক সংস্কার আনা হবে।

মন্তব্য