বাসে নারী শ্রমিককে ধর্ষণের পর হত্যা, চালক আটক

প্রজন্ম ডেস্ক

ঢাকার ধামরাইয়ে কাওয়ালীপাড়া-বালিয়া আঞ্চলিক মহাসড়কে যাত্রীবাহী বাসের ভিতর একটি সিরামিক্স কারখানার মমতা আক্তার (১৮) নামে এক নারী শ্রমিককে ধর্ষণের পর হত্যার অভিযোগে বাসটির চালককে আটক করেছে পুলিশ।

শনিবার সকালে অভিযুক্ত বাসচালককে আটকের বিষয়টি নিশ্চিত করেন ধামরাই থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) দীপক চন্দ্র সাহা।

এর আগে শুক্রবার গভীর রাতে ধামরাইয়ের কাওয়ালীপাড়া-বালিয়া আঞ্চলিক মহাসড়কের পাশে হিজলী খোলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পশ্চিম পাশে একটি জঙ্গলের মধ্যে থেকে ওই শ্রমিকের লাশটি উদ্ধার করে পুলিশ।

আটক সোহেল (৩০) ফরিদপুর জেলার আমানত খানের ছেলে। সে ধামরাই উপজেলার জেঠাইল গ্রামে তার শশুর বাড়ি থেকে বাসচালকের কাজ করতো।

ওসি দীপক চন্দ্র সাহা জানান, গতকাল ভোরে ওই নারী শ্রমিক কারখানায় যাওয়ার উদ্দেশ্যে কারখানার শ্রমিকবাহী বাসে ওঠেন। সেসময় অন্যান্য শ্রমিক বাসে উঠার আগেই চালক বাসটি চালিয়ে কিছু দূর যাওয়ার পর তাকে ধর্ষণ করে। এ সময় সে চিৎকার করলে তাকে শ্বাসরোধ করে হত্যার পর মরদেহ সড়কের পাশে ফেলে দেয় চালক সোহেল।

রাতে ওই শ্রমিক বাড়ি না ফিরলে তার মা ধামরাই থানায় একটি নিখোঁজের সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন। পরে পুলিশ গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে বাসচালককে আটক করে। তার দেওয়া তথ্য অনুযায়ী শনিবার ভোরে লাশ উদ্ধার করা হয়। পুলিশ লাশের ময়নাতদন্তের জন্য রাজধানীর শহীদ সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে পাঠিয়েছে।

নিহত নারী শ্রমিকের ভাই জানান, সংসারের একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যক্তিকে হারিয়ে তারা নিঃস্ব হয়ে পড়েছেন। তারা এক ভাই ও এক বোন ছিলেন।

মন্তব্য