চিতাবাঘের মাংস খেয়ে গ্রামবাসীর পিকনিক

প্রজন্ম ডেস্ক

মানুষখেকো বাঘের কথা তো শুনেছেন! বাঘখেকো মানুষের কথা শোনেননি নিশ্চয়ই‍! চিতাবাঘের মাংস খেয়ে গ্রামবাসী পিকনিক করেছে। এমন ঘটনা ঘটেছে আসামের অটল রঙঢালি এলাকায়। শনিবার এমন খবর প্রকাশ করেছে জি নিউজ ইন্ডিয়া।

খবরে বলা হয়েছে, একটি পূর্ণবয়স্ক চিতাবাঘকে পিটিয়ে মেরে তার মাংস খেয়েছে গ্রামবাসীরা। তাও আবার রীতিমতো পিকনিক করে! আসামের এই ঘটনা নাড়িয়ে দিয়েছে দেশের পশুপ্রেমীমহলকে। বিভিন্ন স্থানে এ ঘটনা নিয়ে চলছে নানা আলোচনা।

আসাম-নাগাল্যান্ড সীমানায় এর আগে হাতি মেরে তার মাংস খাওয়ার ঘটনা ঘটেছিল। গণ্ডার, বিড়ালের মতো পশু মেরে তাদের মাংস রান্না করে খেয়েছেন কিছু মানুষ। এবার একদল গ্রামবাসী বাঘ মেরে মাংস খেলেন।

গ্রামবাসী জানিয়েছে, পাঁচ জন মানুষের ওপর হামলা চালিয়েছিল সেই চিতাবাঘটি। এরপর নদী পেরিয়ে আরেক গ্রামে ঢুকেও কিছু মানুষের ওপর হামলা চালায় প্রাণীটি। নদী পেরিয়ে দ্বিতীয় গ্রামে ঢোকার পর চিতাবাঘটিকে ঘেরাও করে গ্রামবাসী। ইট, পাথর, লাঠি দিয়ে পিটিয়ে চিতাবাঘটিকে মেরে ফেলে গ্রামবাসী। তবে তাতেই ক্ষান্ত হননি তারা। এরপর শুরু হয় চিতাবাঘের মাংস খাওয়ার তোড়জোর।

চিতাবাঘটিকে কেটে গ্রামবাসী রান্না করে। পরে সবাই মিলে পিকনিক করে খেয়ে ফেলেন। কেউ কেউ আবার এই ঘটনা ভিডিও করে রাখেন। একের পর এক ছবিও তুলেন।

এদিকে এ ঘটনায় বনদফতরের কর্মীরা বিস্মিত। গ্রামবাসীদের বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করেছে পুলিশ। দোষীদের খোঁজে তল্লাশি চলছে। পুলিশ জানিয়েছে, বছর তিনেক আগেও এই এলাকায় চিতাবাঘ মেরে মাংস খেয়েছিল গ্রামবাসী।

মন্তব্য